Bangla Choti | অন্যদের মতো আপনিও কি খুঁজছেন বাংলা চটি গল্প?

অন্যদের মতো আপনিও কি খুঁজছেন বাংলা চটি গল্প?


Bangla Choti Golpo সে বছরি আমি জীবনে প্রথম টুরেস্ট শুরুকরি । আমার ছোট থেকেই অনেক সখ ছিল বড় হলে আমি ঘোরবো আর ভালো ভালো স্থানগুলো পরিদর্শন করবো । 

তাই প্রথমে ইচ্ছে হলো দেশের পাহাড় পর্বত গুলো পরিদর্শন করা । তাই আমার প্রথম টুরেস্ট ছিল রাঙ্গামাটি । 

আমি যখন রাঙ্গামাটি পৌঁছালাম তখন বাজে রাত দশটা তাই গাড়ি থেকে নেমেই আগে একটি খাবার হোটেলে ঢুকে খাওয়ার পর্বটি শেষ করলাম এবং দেখলাম একটি সুন্দরী মেয়ে যার চোখ দুটো লাল এবং মাত্র তার যৌবন শুরু হয়েছে।

এবার রাতের নিদ্রাযাপনের চিন্তা ডুকলো মাথায় । ওই হোটেলের একজনকে জিজ্ঞাস করায় সে আমায় ওখান থেকে প্রায় এক কিলো দূরে একটি আবাসিক হোটেলের ঠিকানা দিলেন । 

আমি তার কথা মত সে হোটেলে চলেগেলাম এবং একটি রুম নিয়েনিলাম দুইদিনের জন্য। 
প্রথম রাতঃ
আমায় রুম দেখিয়ে দিয়ে হোটেলের লোক চলেগেলেন ।

রাত অনেক হয়ে যাওয়ায় আমি তারাতারি শুয়ে পড়ি । আমার চোখে তখন পুরো ঘুম আসেনি । এরই মধ্যে আমার রুমের দরজা নক করা শব্দ শুনতে পেলাম ।

আমি আমার হাতের ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম তখন রাত দুটো বাজে ।

আমি দরজা সামনে গিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম কে ? ও পাশ থেকে একজন মেয়ে মানুষের শব্দ শুনতে পেলাম উনি বললো সে নাকি পুলিশের লোক । তো আমি দরজা খুলে দেখি একজন ভদ্র মহিলা দেখতে অসাধারন যুবতি ও সুন্দরী  । 

পুলিশের পোশাক পড়া হাতে একটি লাঠি ও একটি টচ লাইট । তার সাথে চারজন সিপাহী আছে । উনারা ভেতরে প্রবেশ করে আমায় বলছে আমাদের কাছে ইনফরমেশন আছে এখানে কিছু ক্রাইম কারীর অনুপ্রবেশ আছে তাই আমরা এ হোটেলটি চেকাপে আছি । 


কিছু মনে করবেন না আমরা আপনার কক্ষটি একবার সার্চ করবো আমি বললাম ঠিক আছে । উনারা আমার কক্ষটি সার্চ শেষে আমায় বলছে দেখুন কক্ষ সার্চ শেষ এখন আপনার বডি সার্চ করবো । 

পরে দুজন সিপাহীকে আমার বর্ডি সার্চের জন্য নির্দেশ দেওয়া হল । দুজন সিপাহী আমার বর্ডি সার্চ শেষ করে উনাকে রিপোট দিলেন না ম্যাডাম ওনার সাথেও কিছু পাওয়া যায়নি । 

উনি বললো ঠিক আছে তোমরা গাড়িতে যেয়ে বসো আমি আসছি । উনি বললো সরি কিছু মনে করবেন না সিপাহীদের কথা কেন যেন আমার বিশ্বাস হচ্ছে না তাই আমি নিজে একটু আপনার বর্ডিটি সার্চ করবো । 

প্লীজ আপনার হাত দুটো একটু ওপরে নেন । আমি আমার হাত দুটো ওপরে নিলাম । প্রথম একবার সুন্দর করেই সার্চ করলেন ।

দৃত্বিয়বার উনি আমার পুরো বডি সার্চ না করে কেমন যেন একটু উল্টাপাল্টা সার্চ করা শুরু করলেন । পাঠকগণ মনে মনে ধরেনিন এখানে কিছু কাঁট পিচ আছে ।

তার নরম হাতের ছোঁয়ায় যেন 
আমার পুরো শরীর ও শরীরের রক্ত কেমন যেন ৩৯৫ কিলোমিটাল বেগে দৌড়াচ্ছিল । 

উনার সার্চ শেষ করে বলে গেলেন কাল আবার আসবো । আমি বললাম কেন আপনার স্বামী নাই উনি বললো আছে ।

উনি আর জামাইয়ের সাথে ঘটে যাওয়া সেই Bangla Choti Golpo বললেন,  যে চটি গল্প সম্পর্কে সবার পড়ে ফেলা উচিত বিয়ের আগে।
   

নব-বধুর বাসর-রাতের  ঘটনা 


 স্ত্রীঃ এই যে, আপনি কিন্তু আমাকে আমার অনুমতি ছাড়া টাচ করবেন না।

 স্বামীঃ মানে, কি বুঝলাম না? 

 স্ত্রীঃ বুঝতে হবে না। আপনি আমাকে টাচ করবেন না করলে কিন্তু আমি কান্না করবো।

 স্বামীঃ ওকে, তাও কান্না করতে হবে না। এখন আপনি একটু সরে বসেন আমি ঘুমাবো। এভাবে বিছানার মাঝখানে বসে থাকলে আমি ঘুমাবো কি ভাবে? 

 স্ত্রীঃ শোনেন আমি আপনার ৫ বছরের ছোট। তাই আমাকে আপনি বলবেন না। আমাকে তুমি করে বলবেন। আর আমি আপনাকে আপনি করে বলবো।

 স্বামীঃ কেনো এমনটা হবে? হয় দুজনে তুমি বলবো না হয় আপনি।

 স্ত্রীঃ দেখুন কথা না শুনলে কিন্তু কান্না করবো এমনি আম্মু আব্বুর জন্য খারাপ লাগছে।

 স্বামীঃ কি আজব?কথায় কথায় কাদতে হবে নাকি? 

 স্ত্রীঃ না, আগে বলেন রাজি কিনা? 

 স্বামীঃওকে,রাজি তুমি ঘুমাবে না? 

 স্ত্রীঃ শোনেন আজ রাতে আমি আপনি কেউ ঘুমাবো না।

 স্বামীঃ কেনো?? 

 স্ত্রীঃ আমি না সারা জীবন কোন প্রেম করিনি। সব সময় ভেবেছি, যাকে বিয়ে করবো, তার সাথেই প্রেম করবো। আর যত দিন পর্যন্ত তাকে ভালবাসতে পারবো না ততদিন তাকে টাচ করতে দিব না।

 স্বামীঃ ওহহ আচ্ছা। এর সাথে না ঘুমানোর কি কারণ বুঝলাম না?? 

 স্ত্রীঃ আপনি আজ ঘুমাবেন না। আজ সারা রাত আপনার সাথে গল্প করবো।

 স্বামীঃকি গল্প? 

 স্ত্রীঃ আমার বরকে নিয়ে আমি যত স্বপ্ন দেখছি...সেই গল্প।

 স্বামীঃ এ আমি না আজ খুব ক্লান্ত। কাল গল্প করি? 

 স্ত্রীঃ না...আজকেই। আপনি ঘুমালে কিন্তু আপনার গায়ে পানি ঢেলে দিবো।

 স্বামীঃকয় কি?? (এই শীতের রাতে) না থাক তার চেয়ে বরং গল্প করি। বলো কি বলবে? 

 স্ত্রীঃ আপনি তো আচ্ছা বরিং মানুষ। কথা বলতেও পারেন না ঠিক ভাবে। আমার নাম জিজ্ঞেস করেন।

 স্বমীঃওহহ আচ্ছা তোমার নামতো রাইসা, তাই না? 

 স্ত্রীঃ আরে দুর এভাবে কি কেউ জিজ্ঞেস করে? 

 স্বামীঃ তাহলে কি ভাবে জিজ্ঞেস করে? 

 স্ত্রীঃ বলবেন...তোমার নাম কি?

 স্বামীঃ কিন্তু আমি তো তোমার নাম জানি।

 স্ত্রীঃ উফ...আপনাকে কিন্তু যা বলতে বলছি তাই বলেন।

 . স্বমীঃ ওকে....তোমার নাম কি? 

 : আমি রাইসা।

 : কিসে পড়ো? 

 : অনার্স প্রথম বর্ষ।

 : আর কি? 

 : ধুর ছাই,,,, কি বরিং মানুষ আপনি? 

 : আবার কি করলাম? 

 : ওকে আপনার প্রশ্ন করতে হবে না। আমি

 নিজে থেকেই বলছি। : যানেন আমার সব ফ্রেন্ড রা রিলেশন করতো। কিন্তু আমি করতাম না।

 : কেনো? 

 : কারণ আমি আমার বরের দুষ্ট মিষ্টি বউ হতে চাইছি সব সময়।

 : কি রকম? 

 : আমি সব সময় চাইছি,,,, আমার সব ভালোবাসা আমি আমার বরকে দিবো। আর ওকে খুব জ্বালাবো।

 : কি রকম? 

 : জানেন আমার চাহিদা গুলো খুব সামান্য। আমার বাড়ি, গাড়ি, ভালো পোশাক, দামি ফার্নিচার কিছুই চাইনা।

 : তাহলে কি চাই? 

 : রোজ সকালে আপনি যখন অফিসে যাবেন, তখন আমার কপালে একটা চুমু দিবেন।

 : আর? 

 : দুপুরে খাবার আগে যেখানেই থাকেন, আমাকে একটা কল দিবেন। না হলে আমি না খেয়েই থাকবো।

 : ওকে দিবো। আর? 

 : অফিস থেকে ফেরার সময় আমার জন্য, চকলেট, আইসক্রিম, ফুসকা, কিছু না কিছু আনতে হবে।

 : আর? 

 : যদি কখনো ভুলে যান তবে আবার বাইরে পাঠাই দিবো।

 : ওকে আনবো। আর? 

 : আর? 

 : আমার কুয়াশা, চাদনী রাত, ঠান্ডা খুব ভালো লাগে। তাই মাঝে মাঝে ঘুরতে নিয়ে যেতে হবে। ব্যস্ত থাকলে বলবো না।

 : ওকে।

 : মাঝে মাঝে চাদনী রাতে, বেল কোনিতে বসে

 এক কাপে দুজন কফি খাবো। : এক কাপে কেন? 

 : হুম এক কাপেই খাবো।

 : ওকে, আর? 

 : মাঝে মাঝে বৃষ্টির রাতে ছাদে গিয়ে দুজনে ভিজবো।

 আর তুমি কদম ফুল দিয়ে আমায় প্রপোজ করবে।

 : এই শহরে কদম ফুল কোথায় পাবো? 

 : আমি জানি না। আর রাগ করলেও কদম ফুল দিয়ে রাগ ভাঙ্গাতে হবে।

 : এটাতো রিতিমত টর্চার। সারা বছর কদম ফুল কই পাবো? 

 : আমি জানি না।

 : আচ্ছা অন্য ফুলের কথা বলো।

 : না। কদম ফুল না দিতে পারলে আমায় কোলে নিতে হবে।

 যতখন মন ভালো হয়নি ততখন কোলে নিয়ে থাকতে হবে।

 : এই ৪৮ কেজির বস্তারে কোলে নিলে আমি বাচবো? 

 : আমি জানি না। কদিন পর আরো মোটা হবো। তবুও কোলে নিতে হবে।

 : বলেকি?প্রথমের গুলাইতো ভালো ছিল।

 : সব গুলাই ভালো, কোলে নিবে কিনা বলেন? 

 : ওকে বাবা নিবো।

 : শোনেন।

 : হুম বলো।

 : আপনার এই বোকা বোকা চশমাটা একটু খুলবেন।

 : কেনো।

 : আপনাকে দেখবো। এত মোটা ফ্রেমের চশমা পড়েন, এখনো ভালো করে আপনাকে দেখি নাই।

 : আচ্ছা আমি ঘুমাবো। চলোলো আগে তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ে নিই,,, কাল কথা হবে গুড নাইট।

 : এই যে শোনেন এখানে তো একটা বালিশ, আমি কোথায় ঘুমাবো।

 : আমার বুকের উপর।

 : মানে? 

 : তোমার যেমন আমাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন। ঠিক তেমন তোমাকে নিয়ে আমার একটা স্বপ্ন। আমার বউ সব সময় আমার বুকে মাথা দিয়ে ঘুমাবে। 

সারাদিন যত রাগ ঝগড়াই হোক , রাতের বেলা যেন কেউ কখনো অন্যজনকে ছাড়া না ঘুমাতে পারে এই হলো প্রেম। এই হলো ভালোবাসা যা বিয়ের পরেই হয়। বিয়ের পরের এই প্রেম ভালোবাসাকেই ইসলাম সমর্থন করে
আর প্রকৃতপক্ষে এতেই পরিপূর্ণ স্বাদ মিঠবে ভাই।    

Bangla Choti Golpo সম্পর্কে কিছু কথাঃ  

ইন্টারনেটের এই বিশাল জগত কে আপনি চাইলে দুইভাবে ব্যবহার করতে পারেন, প্রথমত ভালো কাজে আর দ্বিতীয়ত মন্দ কাজে।

আর আপনি যদি গুগল সার্চ বারে বাংলা চটি গল্প লিখে সার্চ করে থাকেন তাহলে অনেক ধরনের চটি গল্প সমন্বিত ওয়েবসাইট আপনি দেখতে পারবেন।

এগুলো পড়া কি আসলেই বৈধ? আজকের এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা করব বাংলা চটি গল্প এর আসল রহস্য সম্পর্কে।

এগুলো হলো কাল্পনিক চরিত্রের সমন্বয়ে গঠিত গল্প বিশেষ। আপনি যখনই এরকম কোন গল্প পড়ে থাকবেন তখনই আপনার মধ্যে একটি উত্তেজনা বিরাজমান করবে।

আর এই উত্তেজনার বসে আপনি যে কোন ধরনের খারাপ কাজে লিপ্ত হয়ে যেতে পারেন। তবে আমরা যখন এই সমস্ত গল্পসমূহ পড়ি তখন আমাদের কাছে মনে হয়, হয়তো এই গল্প লেখক এর জীবনে এই ঘটনাটি ঘটেছে।

আচ্ছা কারো জীবনে এতটা খারাপ ঘটনা ঘটে যাবে এটা কখনো কি সম্ভব?? অবশ্যই না! এই চটি গল্প এর নামে প্রতিনিয়ত আমরা সম্মুখীন হচ্ছি বিভ্রান্তির।

এই গল্পগুলো পড়ার কোন সুফল আছে কি? নাকি এগুলো শুধুমাত্র কুফলে ভর্তি?

 বাংলা চটি গল্পের ইতিহাস


গল্পগুলো আসলে বিভিন্ন স্বার্থান্বেষী মানুষ তাদের মত অন্যদেরকে খারাপ পথে পরিচালিত করার উদ্দেশ্যে তৈরি করে রেখেছে।

এই গল্প গুলো আসলে অনেকটা রূপকথার গল্পের মতো, আর গল্পের সমস্ত চরিত্র গুলো রূপকথার গল্পকেও হার মানায়।

আর যখনই আপনি এগুলো খুব ভালো ভাবে মনোযোগ সহকারে পড়বেন, তখন আপনার কাছে এই অকল্পনীয় গল্পগুলোকে সত্যি বলে মনে হবে।
আর আপনি যখনই এই গল্পগুলোকে সত্যি  হিসেবে বিবেচনায় রাখবেন, তখনই এটা আপনার জীবনের উপর অনেক খারাপ একটি প্রভাব ফেলবে।

আপনি ওই সময় গুলোতে আপনার আশেপাশের যে সমস্ত মানুষেরা আছে, চটি গল্পের চরিত্র অনুযায়ী আপনি তাদেরকে বিবেচনা করবেন। এটা একটি ভয়ঙ্কর বিবেচনা।

 মানবজীবনেে চটি গল্পের প্রভাব


এ বাংলা চটি গল্প গুলো আপনার জীবনে মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে, এর মধ্যে থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় নিচে তুলে ধরা হলো।

যখনই আপনি অবাস্তব গল্পগুলোকে বাস্তবে আপনার চারপাশের মানুষের চরিত্রকে সেই অনুযায়ী ভাববেন, তখনই এটা আপনার জীবনের জন্য হুমকি ডেকে আনতে পারে।

এই গল্পগুলোর মধ্যে প্রায় গল্পের হেডলাইন গুলো এরকম দেয়া থাকে- পাশের বাড়ির ভাবির সাথে সেক্স, কিংবা ছেলে এবং মায়ের, ভাই এবং বোনের ইত্যাদি অবাস্তব হেডলাইন।

আপনি একবার আপনার নিজের পরিবারের দিকে নজর দিয়ে দেখুন, কিংবা আপনার প্রতিবেশি কয়েকটি পরিবারের দিকে নজর দিয়ে দেখুন।
এগুলো সম্ভব হবে কখনো? তাছাড়া
 যৌক্তিকতা হিসাব করলে এগুলো প্রায় একেবারেই অবাস্তব বললে কোন মতেই ভুল হবেনা।

আপনি কি কখনো এটা ভেবে দেখেছেন যে এই অবাস্তব গল্পগুলো আপনার মানসিকতার কতটা আঘাত হানতে পারে?

আর এই মানসিক বিপর্যয়ের কারণ গুলো এরকম হতে পারে, উদাহরণস্বরূপ আপনি ঐ সমস্ত গল্পে একটি চরিত্র পড়লেন ছেলে এবং মায়ের দৃশ্য নিয়ে।

তখন আপনি ঘরে এসে আপনার মাকে কি এভাবে বিচার করবেন? যেরকমটা আপনি চটি গল্প নামক অবাস্তব গল্পগুলো পূর্বে পড়েছিলেন।

ভেবে দেখুন আপনার মানসিকতা কতটা খারাপের দিকে অতিবাহিত হচ্ছে। শুধু এই চরিত্র ছাড়াও আপনি এরকম আরো অনেক অবাস্তব চরিত্র দেখতে পারবেন। সেগুলো পড়লে আপনি রীতিমতো চমকে উঠবেন।

শুধু মাত্র এই বিষয়গুলোই না, এগুলো যখনই আপনি পড়বেন, তখনই আপনার মনের মধ্যে এক ধরনের খারাপ কামনা এবং উত্তেজনা বিরাজমান করবে।

আর ততক্ষন পর্যন্ত এই কামনা-বাসনা গুলো শেষ হবে না যতক্ষণ না আপনি আপনার যৌন ক্ষুধা মেটাতে না পারছেন।

ফলে আপনি আপনার নিজের সাথে এরকম খারাপ কিছু করে বসবেন, যার মূল্য আপনাকে সারা জীবন ধরে দিতে হবে।

শুধু এটা নয় এ চটি গল্প নামক খারাপ বিষয়গুলো আপনার ব্যক্তিগত জীবনে অনেক বেশি ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলবে। আপনি ড্রাগস নামক অ্যাডিকশন এর মতই এই চটি গল্পের দুনিয়া পুরোপুরি আসক্ত হয়ে যেতে পারেন।

অন্যদের মতো আপনিও কি খুঁজছেন বাংলা চটি গল্প?

এছাড়াও এই গল্পগুলো পড়ার কারণে আপনি হস্তমৈথুন নামক এক মারাত্মক নেশায় আসক্ত হয়ে যেতে পারেন। এতে আপনার সমস্ত যৌন শক্তি চলে যাবে।

এই চটি গল্প নামক গল্প গুলো হয়তো আপনি খুব বেশি হলে আপনার বিয়ে না হওয়া অবধি পড়তে পারেন। কিন্তু যে যৌন শক্তি আপনি এই গল্প পড়ে হারিয়ে ফেলবেন, তাকে আর কখনো ফিরে পাবেন?

তাই সময় থাকতে আপনাকে অবশ্যই এই নেশা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

মনে রাখবেন: এই ব্লগের কোনও সদস্যই কোনও মন্তব্য পোস্ট করতে পারে৷