দেখতে চান ফেসবুকে কে কে আপনাকে ফলো করছে?

দেখতে চান ফেসবুকে কে কে আপনাকে ফলো করছে?

কখনো কি এরকম ইচ্ছা জাগে, এটা দেখবেন ফেসবুকে কে কে আপনাকে ফলো করেছে? কারণ আপনি হয়ত চিনতে চান আপনার কার্যাদি কারনে কে কে আসলে আপনাকে ফলো করছে?

আপনি হয়তো পূর্বে এরকম অনেক টুলস কিংবা ওয়েবসাইটের সহযোগিতা নিয়েছেন এটা দেখার জন্য যে ফেসবুকে আসলে কে আপনাকে ফলো করে?

তবে আপনি প্রায় সবক্ষেত্রেই ব্যর্থ হয়েছেন এই বিষয়টি দেখার জন্য। তবুও আপনি হাল ছাড়েননি, আপনি চলে এসেছেন একদম আদর্শ জায়গায়।

যেখান থেকে আপনি অবশ্যই এটা জানতে সক্ষম হবেন যে ফেসবুকে আসলেই কে কে আপনাকে ফলো করে?

এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই ফেসবুকে ফলোয়ার অপশন ওপেন করতে হবে, আর ফেসবুকে ফলোয়ার অপশন কিভাবে অপেন করবেন এটা নিয়ে আমি একটি টিউটোরিয়ালে আলোচনা করেছি?

আপনি চাইলে সম্পর্কে পুরোপুরি  জানার জন্য শুধুমাত্র নিচের দেয়া পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ অব্দি  দেখে আসুন তাহলেই বুঝে নিবেন।
আর যখনই আপনি ফেসবুকে ফলোয়ার অপশন ওপেন করবেন তখন আপনি দেখতে পারবেন যে যতজন আপনাকে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট দিছে তারা আপনার ফলোয়ার হিসেবে যুক্ত হয়ে যাচ্ছে।

আর যখনই তা ফলোয়ার সংযুক্ত হবে তখনই তা সংখ্যা হিসেবে কাউন্ট হবে, যেমন- Followed by 100 People's 

দেখতে চান ফেসবুকে কে কে আপনাকে ফলো করছে?

এক্ষেত্রে আপনার  ফলোয়ার এর প্রাইভেসি যদি পাবলিক করে দিয়ে দেন তাহলে, তাহলে আপনি ফেসবুক অফিশিয়াল অ্যাপস এর সাহায্যে তা দেখতে পারবেন।

প্রথমে আপনাকে ফেসবুকের অফিশিয়াল অ্যাপসে আপনার অ্যাকাউন্ট লগিন করতে হবে, তারপর যখনই আপনি Edit more details এ ক্লিক করবেন তখনই Followers বলে একটি অপশন পাবেন।

এই অপশনটি ঠিক নিচের দিকে আপনি ঐ সমস্ত ব্যক্তিদের দেখতে পারবেন যে সমস্ত ব্যক্তিবর্গ আপনাকে ফলো করছে।
দেখতে চান ফেসবুকে কে কে আপনাকে ফলো করছে?

আর এভাবেই আপনি চাইলে ফেসবুকে আপনাকে কে কে ফলো করছে এই বিষয়টিকে দেখতে পারবেন।

ফেসবুক লাইক কমেন্ট বাড়ানোর উপায় এবং ফেসবুক লাইক সফটওয়্যার একসাথে

ফেসবুক লাইক কমেন্ট বাড়ানোর উপায় এবং ফেসবুক লাইক সফটওয়্যার একসাথে

গভীর সমুদ্রে সাঁতার না জানা আপনি যেমন অসহায়, ঠিক তেমনি ফেইসবুক প্রোফাইল লাইক কমেন্ট ছাড়াও অসহায়।

ফেসবুকে করা আপনার যেকোনো স্ট্যাটাস যদি কারো পছন্দ হয়ে থাকে তাহলে সে অবশ্যই আপনার স্ট্যাটাসে একটি লাইক, কমেন্ট করে যাবে।

এর জন্য আপনাকে ইন্টারেস্টিং স্ট্যাটাস লিখতে হয়, যাতে করে আপনি আপনার স্ট্যাটাস গুলো তে লাইক বাড়াতে পারেন।

তবে অনেক ক্ষেত্রেই ভালো স্ট্যাটাস লেখার পরেও আমাদের ফেসবুকে করা পোস্টটিতে খুব বেশি একটি লাইক হয় না, কেন এরকমটা হয়?

আপনি কিভাবে খুব সহজেই ফেসবুকে লাইক বাড়াতে পারবেন? আর এই সিস্টেমগুলো কাজ না করলে লাইক বাড়ানোর সফটওয়্যার হিসেবে কোন গুলোকে ব্যবহার করবেন?

এ সমস্ত কিছু সমন্বয়ে আজকের এই পোস্ট টি। আশা করছি আজকের এই পোস্টটি আপনি শেষ পর্যন্ত দেখবেন।

ফেসবুকে লাইক বাড়ানোর উপায়-

 নিয়মিত স্ট্যাটাস আপডেট 


আপনি যদি আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে প্রতিনিয়ত নতুন ধরনের স্ট্যাটাস আপডেট করেন তাহলে ঠিক খুব বেশি রেঙ্ক করবে।

আর এতে করে আপনার ফ্রেন্ড লিস্টে থাকা সকল ফ্রেন্ড প্রতিনিয়ত আপনার স্ট্যাটাস গুলো দেখতে পারবে।

তখন যদি আপনার স্ট্যাটাস টি খুব বেশি ইন্টারেস্টিং টাইপের হয় তাহলে অবশ্যই সে আপনার স্ট্যাটাস দিতে লাইক, কমেন্ট করতে বাধ্য হবে। আর যদি কমেন্ট না করে তাহলে অন্তত একটা লাইক তো পাবেনই।

আর স্ট্যাটাস আপডেটের ক্ষেত্রে আপনাকে কয়েকটি  বিষয়ের প্রতি অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে।

▪ ক্যাপশন
▪ কপিরাইট
▪ সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা

ক্যাপশন

আপনার পোস্টের দিকে কোন ব্যক্তি কতটা নজর দিবে তার সিংহভাগ নির্ভর করে স্ট্যাটাস দেয়া ক্যাপশনটি উপর, এটা নির্ভর করবে আপনি কি ধরনের ক্যাপশন দিয়ে স্ট্যাটাসটি পাবলিশ করেছেন?

তাই আপনাকে অবশ্যই যেকোনো স্ট্যাটাস পাবলিশ করার আগে এটা নিয়ে কোন ধরনের ক্যাপশন দেয়া যায় সেটি আগে নির্বাচন করে নিবেন।

আর আপনি চাইলে নিচে দেয়া পোস্ট থেকে, যেকোনো ফেইসবুক পোস্টের জন্য অনেকগুলো ক্যাপশন সংগ্রহ করে নিতে পারেন।

কপিরাইট

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন তারা নানা ধরনের ফেসবুক পেজ কিংবা গ্রুপ থেকে স্ট্যাটাস কপি করে তাদের টাইমলাইনে পাবলিশ করে।

এটা আসলে খুবই বাজে স্বভাবের একটি কাজ, আপনি অন্যদের স্ট্যাটাসের প্রতি নজর দিয়ে নিজের প্রতিভাকে নষ্ট করে ফেলছেন।

এছাড়াও অন্যের সেটা কপি করে আপনার টাইমলাইনে যদি পাবলিশ করেন,তাহলে এটি আপনার টাইমলাইন ভিজিটর এর উপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে।

কারণ যে কেউ এটাকে ঘৃনার চোখে দেখে, ব্যাপারটা আপনি বলেন তো- একই পোস্ট আপনার কয়বার দেখতে ভালো লাগবে?

সাজিয়ে লেখা

যেকোনো স্ট্যাটাস পাবলিশ করার আগে মাত্রাতিরিক্ত ইমোজি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

অনেকে এটা মনে করেন যে কোন স্ট্যাটাস এর ভিতরে মাত্রাতিরিক্ত ইমোজি ব্যবহারের ফলে হয়তো এর সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। আসলে এটা সম্পূর্ণ একটি ভুল ধারণা।

কোন ধরনের ইমোজি ব্যবহার করা ছাড়াও আপনি সুন্দর এবং সাবলীল ভাবে লিখে আপনার স্ট্যাটাসটি সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে পারেন।

আর তাই ইমোজি ব্যবহার করার দিকে নজর না দিয়ে খুব সুন্দর এবং সাজিয়ে-গুছিয়ে যেকোনো স্ট্যাটাস পাবলিশ করার চেষ্টা করুন ।

যাতে ভিজিটররা আপনার স্ট্যাটাসটি কে ভালোবাসার নজরে দেখে এবং এতে অবশ্যই একটি লাইক করতে চায়।

 অন্যের স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্ট


আপনি যদি আপনার ফ্রেন্ড লিস্টে অন্য যে কারো স্ট্যাটাসে প্রতিনিয়ত লাইক কমেন্ট কিংবা রিয়েক্ট করেন তাহলে অবশ্যই এটি তার দৃষ্টিনন্দিত হবে।

প্রথমদিকে হয়তো আপনি অন্য কারো স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্ট করার পরে ওই ব্যক্তি কর্তৃক লাইক কমেন্ট ফেরত নাও পেতে পারেন।
এজন্য আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ধারণ করতে হবে এবং আরো বেশি করে ওই ব্যক্তির পোস্টটিতে লাইক কমেন্ট চালিয়ে যেতে হবে।

আপনি অন্যদের ফেসবুক স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্টের গতি যত দ্রুত হারে বাড়াতে থাকবেন, আপনার স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্ট ঠিক ততটাই বাড়বে।

 ফ্রেন্ড লিস্ট  


আপনার ফেসবুকে যেকোনো স্ট্যাটাসে কতটা লাইক পড়বে কিংবা কমেন্ট হবে তার বিশেষ অংশ নির্ভর করে আপনার ফ্রেন্ডলিস্টের উপর।

ফ্রেন্ডলিস্টের উপর বলতে কয়েকটি বিষয় বুঝানো হয়েছে- প্রথমত আপনার ফ্রেন্ডলিস্টের আকার, আর দ্বিতীয় তো হল আপনার ফ্রেন্ডলিস্টের সমস্ত ফ্রেন্ডরা।

প্রথমত আপনার ফ্রেন্ডলিস্ট যদি খুব বেশি বড় হয় অর্থাৎ 3000-4000 এরকম ফ্রেন্ড হয় তাহলে তো অবশ্যই আপনার স্ট্যাটাসে লাইক বাড়বেই।

কারণ এত সংখ্যক ফ্রেন্ডস থাকার পরে আপনার স্ট্যাটাসটিতে 400 কিংবা 500 টি লাইক অসম্ভব কিছু নয়।
আর দ্বিতীয় যে বিষয়টি আমি বলেছি সেটা হল আপনার ফ্রেন্ডলিস্টের সমস্ত ফ্রেন্ডরা, এখানে আপনি যদি অযথা যে কাউকে আপনার ফ্রেন্ড বানিয়ে নিন, তাহলে এই সমস্ত লোকেরা আপনার স্ট্যাটাসে অবশ্যই লাইক করবে না।

তাই ফ্রেন্ড সিলেক্ট করার আগে অবশ্যই আপনাকে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

▪ সে কতটা একটিভ থাকে
▪ তার পোস্টে লাইক কমেন্ট
▪ কতটা স্ট্যাটাস প্রতিদিন পাবলিশ করে

উপরে তিনটি বিষয় যখন আপনি পুরোপুরিভাবে পজিটিভলি পেয়ে যাবেন তখনই ওই ব্যক্তিকে আপনার ফ্রেন্ড বানিয়ে নিন।

 একটিভ থাকুন 


ফেসবুকে আপনার স্ট্যাটাসে লাইক বাড়াতে হলে অবশ্যই আপনাকে প্রতিদিন অন্তত ছয় থেকে সাত ঘণ্টা ফেসবুকে একটিভ থাকতে হবে।

এতে করে আপনার ফ্রেন্ডলিস্টের যে কারো স্ট্যাটাস আপনি পেয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।

আর যখনই আপনি আপনার ফ্রেন্ড লিস্টের যেকারো স্ট্যাটাসটি পাবেন, তখনই আপনার উচিত হবে সেই স্ট্যাটাসে লাইক এবং কমেন্ট করা।
আর যখনই আপনি ওই ব্যক্তির সমস্ত পাবলিশ করা সমস্ত স্ট্যাটাস গুলোতে প্রথমেই লাইক কমেন্ট করবেন, তখন আপনি তার দৃষ্টির মধ্যে পড়বেন।

আর এরকম যখন খুব বেশি দিন অতিবাহিত হবে,তখনই আপনি লক্ষ্য করে দেখবেন যে ওই ব্যক্তিটি আপনার স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্ট করছে।

আর এভাবেই আপনার স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্ট এর গতি অচিরেই বেড়ে যাবে। যা দেখে আপনি কল্পনা করতে পারবেন না।

ফেসবুক অটো লাইক সফটওয়্যার

যদি আপনি যে কোন স্ট্যাটাসে পাবলিশ করার পরেই এই স্ট্যাটাসটিতে কয়েক হাজার লাইক দেখতে চান, তাহলে আপনি অটো লাইক সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন।

এই সফটওয়্যার গুলো খুবই কার্যকরী উপায় আপনার যেকোন স্ট্যাটাসে লাইক কয়েকগুণ বৃদ্ধি করে দিতে পারে।

তাহলে আর দেরি না করে নিচের দেয়া সফটওয়্যারগুলোকে ব্যবহার করে ফেলুন আপনার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লাইক মেশিন হিসেবে।

অটো লাইকার সফটওয়্যার-১
অটো লাইক সফটওয়্যার-২
অটো লাইক সফটওয়্যার-৩ 

উপরে দেয়া প্রত্যেকটি সফটওয়্যার থেকে আপনি খুব সহজেই অটো লাইক নিতে পারবেন কোন ধরনের ফেসবুক একাউন্ট হ্যাকিং সমস্যা ছাড়াই।

তবুও মনে সন্দেহ দূরীকরণের জন্য আপনি চাইলে প্রত্যেকবার লাইক নেওয়ার পর,আপনার ফেসবুক একাউন্টে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে পারেন।

ফেসবুকে ফলোয়ার বৃদ্ধি করার সবচেয়ে কার্যকরী উপায় সম্পর্কে জেনে নিন|

ফেসবুকে ফলোয়ার বৃদ্ধি করার সবচেয়ে কার্যকরী উপায় সম্পর্কে জেনে নিন|

ফেসবুকে ফলোয়ার নিয়ে আমাদের বরাবরের মতোই খুব বেশি একটা মাথা ব্যাথা। 

আপনি হয়তো অনেক সেলিব্রেটি কিংবা আপনার মত সাধারন ফেসবুক ইউজারের প্রোফাইলে অনেক বেশি ফলোয়ার দেখতে পান।

আর আপনার মনের মধ্যে এরকমটা ফিল হয়, যদি আমারও প্রোফাইলে অনেক বেশি ফলোয়ার থাকতো? আর আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে ফলোয়ার বাড়ানোর অনেক উপায় আছে।

ফলোয়ার বাড়ানোর আগে আপনাকে অবশ্যই আপনার প্রোফাইলে ফলোয়ার অপশন অপেন করতে হবে। 

অন্যথায় এই প্রসেস গুলো ব্যবহার করার পরেও আপনার প্রোফাইলে ফলোয়ার যুক্ত হবে না। তাই আগে দেখে নিন কিভাবে ফলোয়ার অপশন টি অপেন করবেন।

ফেসবুক ফলোয়ার অপশনটি অন করা হয়ে গেলে এবার আপনাকে নজর দিতে হবে কিভাবে আপনার ফেসবুক ফলোয়ার বহুলাংশে বাড়িয়ে নেয়া যায়।


 নিয়মিত স্ট্যাটাস আপডেট


আপনি যদি আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে পোস্ট করেন তাহলে অনেকেই আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে প্রতি নজর দিবে।

আর আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে পোস্ট গুলো যদি খুবই ইন্টারেস্টিং হয় তাহলে যে কেউ এটাকে তাদের টাইমলাইনে শেয়ার করবে।

আর যখন প্রতিদিনই আপনার স্ট্যাটাস গুলো অন্যরা শেয়ার করবে তখন তাদের বন্ধু-বান্ধবেরা এই স্ট্যাটাসটি দেখতে পারবে, এবং আপনার টাইমলাইনে ভিজিট করবে।

তারপর যখনই আপনার অন্যান্য স্ট্যাটাসগুলো তারা পছন্দ করবে তখনই তারা আপনাকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট দিবে, আর আপনি এটা একসেপ্ট না করা অবধি তার আপনার ফলোয়ার হিসেবে থাকবে।


 কপি-পেস্ট পরিহার 


আপনি যদি আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে প্রতিদিন এরকম কোন স্ট্যাটাস শেয়ার করে থাকেন যা অন্য কোথাও থেকে আপনি কপি করেছেন।

তাহলে এটা আপনার প্রোফাইলের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে, আর যারা আপনার ফলোয়ার আছে তারা হয়তো আপনাকে আনফলো করে দিবে।

এতে করে ফলোয়ার বাড়ানো তো দূরে থাক দিন দিন আপনার অর্গানিক ফলোয়ার কমতেই থাকবে। তাই আপনি যে স্ট্যাটাসগুলো লিখতে পারেন সেগুলো শেয়ার করুন। কারো স্ট্যাটাস কপি করা থেকে দূরে থাকুন।

 বড় বড় গ্রুপে পোস্ট করুন


আপনি চাইলে ফেসবুকে অনেক ফেসবুক গ্রুপে আপনার সিক্রেট স্ট্যাটাস গুলো শেয়ার করতে পারেন, কিংবা ট্রেন্ডিং যে কোন টপিক নিয়ে আলোচনা করতে পারেন।

এখানে ট্রেন্ডিং টপিক বলতে বর্তমান সময়ে বহুল আলোচিত যে কোন একটি টপিক নিয়ে আলোচনা করার কথা বলা হয়েছে। 

এবং এটা যদি গ্রহণযোগ্যতা পায় তাহলে ওই ফেসবুক গ্রুপের এডমিন মডারেটররা আপনার স্ট্যাটাস টি তাদের গ্রুপে শেয়ার করার জন্য অনুমোদন দিবে।

এবং গ্রুপে থাকা কয়েক মিলিয়ন মেম্বার্স আপনার স্ট্যাটাসটি দেখতে পারবে, ফলশ্রুতিতে তারা আপনাকে ফলো করবে অবশ্যই।

তবে ট্রেন্ডিং টপিক নিয়ে আলোচনা করুন বা না করুন এমন একটি স্ট্যাটাস শেয়ার করুন যাতে যে কেউ বিনোদন উপভোগ করতে পারে।

 প্রোফাইল পুরোপুরি কমপ্লিট করুন


আপনি চাইলে আপনার ফেসবুক প্রোফাইল পুরোপুরি কমপ্লিট করার মাধ্যমে আপনার প্রোফাইলে ফলোয়ার বাড়াতে পারবেন।

যেমন আপনার ফেসবুক প্রোফাইল পিকচার, কভার ফটো এবং আপনার সম্পূর্ণ ডিটেইলস গুলো ভালোভাবে পরিপূর্ণ করতে হবে।

এছাড়াও আপনি চাইলে আপনার ফেসবুকের বায়ো স্টাইলিশ ভাবে দিতে পারেন। এখানে আপনাকে আপনার প্রোফাইল থেকে অন্যদের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা ভাবে কাস্টমাইজ করতে হবে।

যাতে করে যে কোন ভিজিটর আপনার প্রোফাইল থেকে দেখে আপনাকে তার বন্ধু হিসেবে যুক্ত করতে বাধ্য হয়।

আর উপরে উল্লেখিত উপায়ে আপনি চাইলে আপনার ফেসবুকে ফলোয়ার বাড়াতে পারবেন। এবং ফেসবুক উপভোগ করতে পারবেন অন্যদের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা ভাবে।

10 অসাধারণ ফেসবুক অটো লাইক সাইট | 1 ক্লিক করুন 500 টি লাইক।

10 অসাধারণ ফেসবুক অটো লাইক সাইট |  1 ক্লিক করুন 500 টি লাইক।


ফেসবুকের যেকোন পোস্ট ইন্টারেস্টিং কিনা সেটা বুঝা যায় সেই পোস্টে কতটা লাইক পড়েছে সেটার উপর। 

তবে আমাদের ফেসবুক স্টাটাসে অনেক সময়ই দেখা যায় তেমন একটা লাইক পড়ে নাহ। এটার কারণ অনেকগুলা হতে পারে।

প্রথমত, আপনি যদি ফেসবুকে তেমন একটা একটিভ না থাকেন কিংবা অন্যের স্ট্যাটাসে লাইক কমেন্ট না করেন তাহলে আপনার স্ট্যাটাসে কেউ লাইক করবে না।

তবে ফেসবুক স্ট্যাটাসে লাইক বাড়ানোর জন্য আমাদের অনেক সময় ফ্রেন্ডলিস্ট  বড় করতে হয়, যা অনেকেরই পছন্দের মধ্যে পড়ে না।

আর এসব হিসাব সমীকরণের মধ্য থেকে আমরা ফেসবুক স্ট্যাটাস এর জন্য অটো লাইক বেচে নেই।

কারণ এরকম অনেক সাইট আছে যেগুলো থেকে আপনি চাইলে ফ্রিতে আপনার যেকোন ফেসবুক স্ট্যাটাসে অটো লাইক নিতে পারবেন।

আজকের এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা করব এরকম দশটি ওয়েবসাইট সম্পর্কে, যে সাইটগুলো থেকে আপনি চাইলে ফ্রিতে এবং এক ক্লিকে 500 অটো লাইক নিতে পারবেন।

সাইট গুলোর লিঙ্ক আমি নিচে দিয়ে দিচ্ছি আপনি চাইলে এখান থেকে প্রত্যেকটি সাইট ব্যবহার করতে পারবেন।



তবে অনেক সময় এটা দেখা যায় যে, আমরা এ সমস্ত সাইট থেকে ফেসবুক স্ট্যাটাসে অটো লাইক নেওয়ার পরেও আমাদের ফেইসবুক স্ট্যাটাসে তা যুক্ত হয় না।

এর জন্য আপনাকে কয়েকটি স্টেপ ফলো করতে! অর্থাৎ আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের প্রাইভেসি সেটিং গুলো পরিবর্তন করতে হবে।

একটি কথা হল অটো লাইক নেওয়ার জন্য আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে আপনার দেয়া বয়স অবশ্যই 18 বছর কিংবা তার চেয়ে বেশি হতে হবে।

এবং আপনার প্রত্যেকটি পোস্ট অবশ্যই পাবলিক হতে হবে! অর্থাৎ আপনার পোষ্টের প্রাইভেসী চেঞ্জ করে তা "Friends" থেকে "Public" করতে হবে।

তাইলেই আপনি এ সমস্ত সাইট থেকে অটো লাইক নেয়ার পর আপনার ফেসবুক স্টাটাসে তা অটোমেটিক যুক্ত হয়ে যাবে। 

তবে প্রত্যেকটি সাইট থেকে অটো লাইক নেয়ার ১৫ মিনিট পর আরেকটি সাইট থেকে ট্রাই করতে হবে। 

এবং পর্যাপ্ত পরিমান অটোলাইক  নেয়ার পর আপনার ফেসবুক একাউন্টটি অবশ্যই সিকিউর করে নিবেন। এবং আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকে সাইটগুলো  রিমুভ করে নিবেন। 

ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট|(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)

ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট!(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)

একটি পোষ্টের কমেন্ট দ্বারা বুঝা যায় এই পোস্টটি আসলে পজিটিভ নাকি নেগেটিভ।

কিন্ত অনেকসময় দেখা যায় ফেসবুকে অটো কমেন্ট অপশন চালু করা থাকে।

যার ফলে আপনি কিংবা অন্য যেকোন কেউ একটি পোস্ট পাবলিশ করলে সেখানে অটোমেটিকলি সেই কমেন্টদাতার নাম সহ কমেন্টটি যোগ হয়ে যায়।

বুট কমেন্ট আসলে কি?

এসব কমেন্ট হলো অটো কমেন্ট যেগুলো আমাদের ফ্রেন্ড এর পোস্ট এ কমেন্ট বক্সে অটোমেটিকলি যোগ হয়ে যাবে যখন আপনি এটা আপনার আইডিতে যুক্ত করবেন।

এতে করে আপনার অ্যাক্টিভিটি লগ অনেক বেড়ে যাবে! তবে এই কমেন্ট গুলো যে কোন টাইপের হতে পারে।

তবে আরেকটি কথা হলো এই কমেন্ট গুলো কখনো আপনার ফেসবুক আইডিতে কোন রকম নেগেটিভ প্রভাব ফেলবে না।

তাহলে শুরু করা যাক যে কিভাবে আপনি আপনার ফেসবুক আইডিতে একটি অটো কমেন্ট বুট অ্যাক্টিভ করবেন।

এতে করে আপনি আপনার ফ্রেন্ড এর যেকোনো পোস্টে অটোমেটিকলি কমেন্ট করতে পারবেন!

এর জন্য আপনাকে একটি ওয়েবসাইটের সহযোগিতা নিতে হবে যার লিংক আমি নিচে দিয়ে দিচ্ছি!

Link: Botviet

এই ওয়েবসাইটের সাহায্যে আপনি বুট লাইক, কমেন্ট কিংবা আরো অনেক রকমের সার্ভিস পেতে পারেন!

তবে এই পোস্ট এর মূল আলোচনা হল কিভাবে আপনি আপনার ফেসবুক আইডিতে বুট কমেন্ট স্থাপন করবেন আর তাই এটা নিয়েই আলোচনা হবে।

এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরে আপনি নিচের স্ক্রীনশটএর মত একটি পেইজ দেখতে পারবেন!

প্রত্যেকটি স্ক্রিনশট ফলো করুন! এতে করে আপনি খুব সহজে আপনার ফেসবুক আইডিতে অটো কমেন্ট বুট স্থাপন করতে পারবেন!

ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট!(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)


উপরে স্ক্রিনশটে বক্সে আপনি যে আইডিতে বুট কমেন্ট স্থাপন করতে চান সেই ফেসবুক আইডির ইমেইল এবং পাসওয়ার্ড দিন!

এবং লগইন এ ক্লিক করার পর আপনি নিচের স্ক্রিনশটের মত একটি অপশন দেখতে পারবেন আর সেটা হল: "Get Data" এটাতে ক্লিক করুন!

তারপর তারা আপনাকে সম্পূর্ণ নতুন একটি পেইজ এ নিয়ে যাবে এখান থেকে আপনি সম্পূর্ণ টোকেন টি কপি করুন!


ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট!(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)


সম্পূর্ণ টোকেন গুলো কপি করা হয়ে গেলে আবার আগের পেইজে ফিরে আসুন এবং পেইজটি নিচের দিকে একটু স্ক্রল করুন!

তাহলে আপনি নিচের স্ক্রীনশটএর মত একটি বক্স দেখতে পারবেন এখানে ওই টুকেন গুলো পেস্ট করুন! 

ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট!(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)


তাহলে অটোমেটিক আপনাকে নতুন আরেকটি পেজে নিয়ে যাবে! এবং এখানে আপনি আপনার ফেসবুক আইডি দেখতে পারবেন যে আইডির ডকুমেন্ট দিয়ে একটু আগে লগ ইন করেছেন। 

এবং এই পেইজের একটু নিচের দিকে স্ক্রল করলে আপনি কমেন্ট বুট সেটআপ অপশনটি পেয়ে যাবেন!

ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট!(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)


তাহলেই কাজ শেষ! এবার আপনার ফেসবুক আইডি থেকে আপনার বন্ধুদের প্রোফাইলে যে কোন পোস্টে অটোমেটিকলি কমেন্ট পাবলিশ হবে আপনার আইডি থেকে!


কিভাবে এটা রিমুভ করবেন?

এর জন্য প্রথমে আপনি আপনার ফেসবুক আইডির সেটিংস অপশনে চলে যান যে আইডিতে এটা- সেটআপ করেছেন!

তারপর নিচের স্ক্রিনসট অনুযায়ী Apps And website  এই অপশনে চলে গেলে আপনি দেখতে পারবেন ওই ওয়েবসাইটটিকে!

ফেসবুক আইডিতে যোগ করুন অটো কমেন্ট বুট!(আর মজা নিন বন্ধুদের সাথে)

আর এখান থেকে আপনি এই ওয়েবসাইটের লিংক রিমুভ করে দিলেই ওটা অটোমেটিকলি স্টপ হয়ে যাবে!

আর এভাবেই আপনি আপনার ফেসবুক আইডিতে অটো কমেন্ট বুট সেটআপ এবং রিমুভ করতে পারবেন!

খুব সহজেই যে কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে হাইড করুন আপনার ফেইসবুক আইডির লিঙ্ক |

খুব সহজেই যে কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে হাইড করুন আপনার ফেইসবুক আইডি লিংক!

অনেক সময় আমরা এটা করার চেষ্টা করি যে কেউ যাতে গুগল কিংবা যে কোন সার্চ ইঞ্জিন   আমাদের ফেসবুক আইডি খুজে না পাক!

আর এর কারনে আমরা অনেক সময় এটাই চাই যে কিভাবে যেকোনো সার্চ ইঞ্জিন থেকে আমাদের ফেসবুক আইডি লিঙ্ক থেকে ডিজেবল করে রাখা যায়।

কিংবা হাইড করে রাখা যায় অর্থাৎ কোন সার্চ ইঞ্জিনে আমাদের ফেসবুক আইডি দিয়ে সার্চ করলে যাতে আমাদের আইডি  না পাওয়া যায়।

আজকের এই পোস্টটি শুধুমাত্র তাদের জন্য যারা চায় যে কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে তাদের ফেসবুক আইডি লিংক  রিমুভ করে দিতে।


একটি সহজ এবং সিম্পল প্রসেস যার মাধ্যমে আপনি যেকোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে আপনার ফেসবুক আইডি লিংক হাইড করতে পারবেন!

এর জন্য প্রথমে আপনাকে আপনার ফেইসবুক একাউন্ট সেটিং এ ঢুকতে হবে এবং সেখান থেকে প্রাইভেসি অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে!

এটা এ ক্লিক করার পর আপনি একেবারে নিচের দিকে এই অপশনটি দেখতে পারবেন আর সেটা হল "Do you want search engines outside of Facebook to link to your profile"

খুব সহজেই যে কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে হাইড করুন আপনার ফেইসবুক আইডি লিংক!

আপনি এটাকে প্রথমত দেখতে পারবেন যে Yes দিয়ে সেভ করা আছে।

আপনি যেহেতু সার্চ ইঞ্জিন থেকে আপনার লিংক থেকে হাইড করতে চান সেজন্য আপনাকে "Allow search engines outside of Facebook to link to your profile" এই অপশনটি  সিলেক্ট সিলেট করা থাকলে তা রিমুভ করতে হবে।


তারপর সিলেক্ট তাকে রিমুভ করার পর আপনাকে একটা ওয়ার্নিং দিবে আপনি "Turn Off" করে দিন।


খুব সহজেই যে কোন সার্চ ইঞ্জিন থেকে হাইড করুন আপনার ফেইসবুক আইডি লিংক!

তাহলেই আপনার কাজ শেষ! এবার আর  সার্চ ইঞ্জিনে আপনার ফেসবুক আইডিতে কেউ খুজে পাবে না।

খুব সহজে "Continue Reading"এর মধ্যে আপনার ফেসবুক পেইজের লিংক দিন (প্রমোট করুন আপনার পেইজকে)

খুব সহজে "Continue Reading"এর মধ্যে আপনার ফেসবুক পেইজের লিংক দিন (প্রমোট করুন আপনার পেইজকে)

ফেইসবুক পেইজ কেউ এটা কে তৈরি করতে পারেন, নিজের সৃজনশীলতা যাচাইয়ের জন্য।

কিংবা অনেকেই এটা তৈরি করে তাদের ব্যবসা প্রোডাক্টগুলোকে প্রমোট করার জন্য।

কিন্তু ফেসবুক পেইজে মেইন গোল হল  পেইজের ফ্যান কিংবা লাইক অর্থাৎ আপনার পেইজে যত বেশি গ্রাহক থাকবে! আপনার পেইজটি ঠিক ততই বেশি একটিভ এবং আপনার কাজে ঠিক মত লাভ পাইয়ে দিবে।

কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় আমাদের কাছে পর্যাপ্ত টাকা থাকে না পেজ টা কে প্রোমোট করার জন্য।

আসলে প্রমোট করলে খুব কম সময়ে পেজটাকে আপনি ভাইরাল করে দিতে পারেন।কিন্তু এটা শুধুমাত্র একমাত্র উপায় নয়।

আপনি চাইলে আপনার পেইজ লিংক কে ভালোভাবে সাজিয়ে কন্টিনিউ রিডিং এর ভিতরে আপনার পেইজের লিংক দিয়ে আপনি আপনার পেজ টা কে প্রোমোট করতে পারবেন।

এজন্য আপনি বড় বড় গ্রুপের কমেন্ট বক্স ব্যবহার করতে পারেন! 

এরকম অনেক গ্রুপ আছে যেগুলো আমরা প্রায় 10 মিলিয়ন 5 মিলিয়ন কিংবা তার চেয়ে অধিক মেম্বারস আছে।

আপনি চাইলে দেখতে পারবেন ওই সব গ্রুপে অনেক মেম্বার থাকেন যারা পোস্টের নিচে কমেন্ট করে! 

আপনি যদি চান তাহলে আপনার পেইজ টা থেকে ভালো কিছু আকর্ষণীয় লেখা লিখে কিছু লেখার পর কন্টিনিউ রিডিং এর ভিতরে আপনার পেইজের লিংক দিতে পারেন।

এতে করে যেকোনো ইউজার যখন আপনার লিংকটি দেখার পর কন্টিনিউ রিডিং এ ক্লিক করবে তখনই আপনার পেইজে সে চলে আসবে।

আর যদি পেজটা ভালো লাগে তাহলে সে আপনার পেইজের ফ্যান কিংবা ফলোয়ার হয়ে যাবে।এতে করে আপনি খুব অল্প সময়ে আপনার পেজের ফ্যানদের বাড়াতে পারবেন! 

এবং আপনি যে উদ্দেশ্যে পেজটা ব্যবহার করেন না কেন আপনি আপনার উদ্দেশ্যকে সার্থক করতে পারবেন খুব অল্প সময়র মধ্যে। 

কিন্তু প্রশ্ন হলো কিভাবে এটা করবেন? এর জন্য আপনাকে একটি কোডের সহযোগিতা নিতে হবে।

যার সাহায্যে আপনি কন্টিনুয়ে রিডিং এর ভিতরে আপনার পেইজের লিঙ্ক টা দিতে পারবেন এবং খুব সহজে লাইক বাড়াতে পারবেন! 

এর জন্য আপনাকে নিচের কোডটি কপি করতে হবে এবং আপনার লিখাটি লিখে সেটা পেস্ট করতে হবে।

ঘাবড়াবেন না কিভাবে এটা করবেন আমি দেখিয়ে দিচ্ছি!

এখানে দুইটি কোড আছে এই উভয় কোডগুলি দরকারি। কিভাবে আপনি এটা ব্যাবহার করবেন তা আমি দেখিয়ে দিচ্ছি!

@[আপনার পেইজের লিংক কোড:]

@@[0:আপনার পেইজ কোড:1: কন্টিনিউ রিডিং]]


  • সাবধান এখানে কোন স্পেস দিবেন না! না হলে কোডগুলো কাজ করা যায়


কন্টিনিউ রিডিং এ জায়গায় আপনি যা ইচ্ছা তাই দিতে পারেন এতে কোনো সমস্যা হবে না।

এখন প্রশ্ন হল আপনার পেইজ কোডটি আপনি কোথায় পাবেন?

এর জন্য আপনাকে আপনার পেইজে ভিজিট করতে হবে এবং আপনার পেইজে লিঙ্ক থেকে আপনি কোডটি পেয়ে যাবেন।

বুঝতে সমস্যা হলে আপনি নিচের স্ক্রিনশট ফলো করতে পারে।

 এখন আপনার পেজ থেকে এবাউট এ ক্লিক করুন!

খুব সহজে "Continue Reading"এর মধ্যে আপনার ফেসবুক পেইজের লিংক দিন (প্রমোট করুন আপনার পেইজকে)

তারপর এই পেইজে আসার পর পেইজটা একটু নিচের দিকে স্ক্রল করুন তাহলে আপনি একেবারে সর্বশেষ এ আপনার পেইজ আইডিটি দেখতে পাবেন!

খুব সহজে "Continue Reading"এর মধ্যে আপনার ফেসবুক পেইজের লিংক দিন (প্রমোট করুন আপনার পেইজকে)

ব্যাস এবার আপনি চাইলেই যে কারো পোস্টের নিচে কমেন্ট করে দেখতে পারেন যে লিঙ্কটি কাজ করেছে কিনা! 

ইনশাল্লাহ 100% কাজ হবে। এবং আপনি খুব সহজেই আপনার পেইজ টাকে অনেক বড় করতে পারবেন!