ফেসবুক চালু করার পরে যে কাজগুলো ডেকে আনবে বিপদ |


ইন্টারনেটের জগতে যতগুলো মানুষের বিচরণ করার এবং অন্যান্যদের সাথে কমিউনিকেশন করার প্ল্যাটফর্ম রয়েছে, সেগুলোর মধ্যে আপনি যদি ব্যবহারের মাপকাঠি নির্বাচন করতে চান তাহলে প্রথম স্থানে আপনি ফেসবুকে দিতে বাধ্য হবেন।

কারণ বর্তমান সময়ের সোসিয়াল গণমাধ্যমগুলোর মধ্যে ফেইসবুক অ্যাক্টিভিটি অকল্পনীয় স্থান ধরে রেখেছে এবং দিন দিন এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আপনি যদি ফেসবুকের নাম প্রথমত শুনেন তাহলে এটি ব্যবহার করার জন্য আপনার মনের মধ্যে কৌতূহল জাগতে পারে, তবে আপনি এটি ব্যবহারের অনেক প্রয়োজনীয় তথ্যাদি জেনেছিলেন।

ফেসবুক চালু করার ক্ষেত্রে আমরা অনেক সময় নানা রকমের ভুল ভ্রান্তি করে থাকি, কিন্তু আপনি যদি ফেসবুক চালু করে এই সমস্ত ভ্রান্তি করে থাকেন তাহলে এগুলো আপনার মানব জীবনের উপর প্রভাব ফেলতে পারে।

আর ফেসবুক চালু করার আগে আপনাকে যে বিষয়গুলো সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিতে হয় এবং যে বিষয়গুলোকে ফেসবুকে কখনো শেয়ার করা উচিত হবে না, এই সমস্ত বিষয়গুলো উল্লেখযোগ্য হিসেবে আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

ফেসবুক ব্যবহার করার আগে আপনাকে প্রথমত যে বিষয়গুলোর উপর সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য রাখতে হয় সে বিষয়গুলো সম্পর্কে আজকের এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা করব।

আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য:


আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা ফেইসবুক ব্যবহার করার পরই তাদের টাইমলাইনে বিভিন্ন ধরনের তথ্যাদি দেওয়ার ক্ষেত্রে তারা তাদের সঠিক তথ্য গুলো এখানে সেভ করে রেখে দেন।

তবে অনেক সময় আপনার সঠিক তথ্য গুলো দেয়া আপনার বিপদের কারণ হতে পারে, আর কিভাবে আপনার প্রদানকৃত সঠিক তথ্য গুলো বিপদের কারন হবে তা প্রমাণিত।

তাই আপনি যখনই ফেসবুক চালু করবেন এবং তারপরে ফেসবুক যখন আপনার কাছ থেকে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো জানতে চাইবে তখন এগুলো এড়িয়ে না চলে সবগুলো সঠিক তথ্য দেয়া থেকে বিরত থাকুন।

কারণ অনেক সময় এই তথ্যগুলোর কারণে আপনি হয়তো বিভিন্ন ধরনের ঝামেলার মুখোমুখি হতে পারেন, আর এই তথ্যগুলো না দেয়ার কারণে আপনি প্রাণে বেঁচে যেতে পারেন।

ফেসবুকে আপনি যদি যেকোনো ধরনের ভুয়া ইনফর্মেশন দেন যেমন আপনার এড্রেস কিংবা আপনার জীবনে বিবরণ, তাহলে ফেসবুক কখনো এগুলো যাচাই করতে চাইবে না কিংবা এগুলো ভেরিফাই করার কোনো চাপ আপনার উপরে দিবে না।

কোন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড


আমরা প্রায়শই ফেসবুকে যখনই ভিজিট করি তখনই বিভিন্ন ধরনের পেজ কিংবা গ্রুপে যে কারো সাথে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হওয়ার ঘটনা আমরা দেখতে পারি।

বিষয়টা এরকম যে আপনি যখনই কোন ফেসবুক গ্রুপে কিংবা পেজে ভিজিট করেন তখনই কোন একটি চক্র এই ফেসবুক ব্যবহার করার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের অবৈধ অস্ত্রের ব্যবসা সহ নানা ধরনের খারাপ কর্মকান্ড পরিচালনা করে।

আপনি যদি এই সমস্ত কর্মকান্ডের সাথে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন তাহলে এগুলো আপনার জীবনে মারাত্মক পরিণতি ডেকে আনতে পারে।


এছাড়াও ফেসবুকে যে কোন ধরনের অপপ্রচার সহ খারাপ কর্মকাণ্ড করা থেকে বিরত থাকুন এবং অন্যকে বিরত রাখতে চেষ্টা করুন, কারণ আপনার একটি মাত্র চেষ্টা বাঁচিয়ে দিতে পারে হাজারো মানুষের জীবন।

অপপ্রচার এবং ভুয়া তথ্যঃ


ফেসবুকে আপনি যখনই বিচরন করবেন তখনই আপনার টাইমলাইনে বিভিন্ন ধরনের ভুয়া সংবাদের আনাগোনা দেখতে পারবেন, যে সংবাদমাধ্যমের সংবাদদাতা আসলে নিজেই জানে না যে এই সংবাদের পেছনে কী রহস্য লুকিয়ে রয়েছে।

অনেকেই এই সমস্ত ভুয়া সংবাদ গুলো ছড়িয়ে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করে, আর আমরা এগুলোকে যাচাই না করেই তা আমাদের ফেসবুক টাইমলাইন সহ বিভিন্ন পেইজ বা গ্রুপে শেয়ার করে দিতে মোটেও দ্বিধাবোধ করিনা।

তবে আপনার এই সমস্ত অপপ্রচার এবং অপকর্মের ফলাফল কিন্তু মোটেও ভালো হবে না, বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক এই সম্পর্কে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। 

আর আপনি যদি এটা অমান্য করেন তাহলে নিঃসন্দেহে আপনাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

বাচতে হলে আপনাকে প্রথমত এই ফেসবুক চালু করার পরে যেকোনো ধরনের সংবাদ যখন আপনার টাইমলাইনে দেখতে পারবেন তখন একটি যাচাইকরণ এবং তারপরে অন্যান্যদের কাছে ছড়িয়ে দিন।

ফেসবুক হল এমন একটি প্ল্যাটফরম যেখানে সংবাদ অবশ্যই প্রচার হয়, কিন্তু  একজন যোগ্য নাগরিক হিসেবে আপনার কর্তব্য যে সংবাদ আপনার চোখের সামনে ভাসছে সে সংবাদের সত্যতা যাচাই করা।

নাস্তিকতা কিংবা ধর্মে আঘাতঃ


ফেসবুক বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় গণমাধ্যম হয় এবং এতে প্রতিদিন প্রায় কয়েক বিলিয়ন মানুষের আনাগোনা হওয়ার কারণে এটি বর্তমানে সকলের যেকোনো কিছু প্রচারের মাধ্যম হয়ে উঠেছে।

তবে এক্ষেত্রে আপনি যখনই বিভিন্ন ধরনের ফেইসবুক গ্রুপ কিংবা পেইজে ভিজিট করেন তখন আপনি হয়তো নাস্তিকতা কিংবা ধর্মে আঘাত করা রিলেটেড বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট দেখতে পান।

এই কনটেন্ট বিভিন্ন নাস্তিকের হাতে লেখা এবং তাদের কাজই হল ধর্মকে বিশ্বাস না করে মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা।

আপনি যদি এই সমস্ত অপপ্রচার কিংবা ধর্মের বিরুদ্ধে লেখালেখি কাজে লিপ্ত হয়ে যান তাহলে এর ফলস্বরূপ আপনাকে চরম  মূল্য দিতে হবে।

কারণ প্রত্যেক ধর্মের লোকই তাদের নিজস্ব ধর্ম কে নিজের মনে লালন করেছে এবং তা জন্মের পর থেকেই বিশ্বাস করে আসছে, আপনি যদি এভাবে ধর্মের মধ্যে আঘাত যার মত চেষ্টা করেন তাহলে ফলপ্রসূ আপনার জীবনে অন্ধকার নেমে আসতে পারে।

আর উপরের উল্লেখিত কাজগুলো ফেসবুক চালু করার পরে কখনোই করবেন না, করলেই বিপদ অনিবার্য।

গুরুত্বপূর্ণ এই ফেসবুক সেটিং কি করা হয়েছে আপনার ফেসবুক আইডিতে?

গুরুত্বপূর্ণ এই ফেসবুক সেটিং কি করা হয়েছে আপনার ফেসবুক আইডিতে?

এরকম অনেক ফেসবুক সেটিং রয়েছে যেগুলো আপনাকে অন্যদিকে ফেসবুক ব্যবহারে অনেক বেশি এগিয়ে রাখবে।

এক্ষেত্রে আপনি প্রফেশনাল ভাবে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবেন এবং যেটার সাথে টক্কর দিতে পারবেন। 

বিষয়টা এরকম, যদি আপনার ফেসবুক আইডিতে এরকম গুরুত্বপূর্ণ সেটিং গুলো করে রাখেন তাহলে এই সেটিং গুলোর কারণে আপনার ফেসবুক আইডি অন্যদের চেয়ে আলাদা দেখাবে। 

শুধু তা নয় আপনি যদি এই সেটিং গুলো শিখে রাখতে পারেন তাহলে এগুলো আপনার কাজে আসবে। 

আজকের এই পোস্টটিতে আমি কয়েকটি ফেসবুক সেটিং সম্পর্কে আলোচনা করব যা আপনি আগে কখনো জানতেন না।

আশা করি ফেসবুক সেটিং গুলো জানার জন্য আপনি অবশ্যই এই পোস্টটিকে একদম শেষ পর্যন্ত দেখবেন।

ফেসবুক পেইজে ভিজিটরের পোস্ট বন্ধ করা


ফেসবুক পেজে ভিজিটর এর পোস্ট অনেক ক্ষেত্রেই বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। 

এক্ষেত্রে আমাদের লক্ষ থাকে কিভাবে আমরা ফেসবুকে পেইজে ভিজিটরের পোস্টগুলো বন্ধ করতে।

আর কিভাবে আপনি ফেসবুকে ভিজিটরে পোস্টগুলো বন্ধ করবেন? এটা জানতে হলে নিচের দেয়া আর্টিকেল আপনি একদম শেষ পর্যন্ত দেখে আসতে পারেন।

আশা করি পোস্টটি দেখার মাধ্যমে আপনি আপনার ফেসবুক পেজে ভিজিটর এর পোস্ট গুলো বন্ধ করতে পেরেছেন।

ফেসবুক পেইজের কিছু গুরুত্বপূর্ণ সেটিং


আপনি যদি ফেসবুক পেইজ ব্যবহার করেন এবং এই পেইজে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সেটিং করে রাখতে চান যার মাধ্যমে আপনার পেজটি professional-looking দেবে। 

এবং এটি হ্যাকারদের হাত থেকে আপনাকে বাঁচাবে তাহলে আপনি চাইলে নিচে দেওয়া পোস্টটি দেখে আসতে পারেন।

এই পোস্টের মাধ্যমে আপনি চাইলে আপনার ফেসবুক পেইজে auto-reply ওপেন করা, ফেসবুক পেইজে অশ্লীল কমেন্ট বন্ধ করা, পেইজের সমস্ত ডিটেইলস, ফ্রিতে পেজ প্রমোট, সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ফেসবুক পেজ সেটিং করতে পারবেন।

ফেসবুক কমেন্ট অপশন হাইড


আমরা অনেক সময় ফেসবুকে নানা ধরনের অশ্লীল এবং কুরুচিপূর্ণ কমেন্টের কারণে আমাদের যেকোন ধরনের স্ট্যাটাস থেকে কমেন্ট অপশন টি হাইড করে ফেলতে চাই। 

এতে করে আর কেউই আমাদের ফেসবুক স্ট্যাটাসে কমেন্ট করতে পারেনা।

আর কিভাবে আপনি খুব সহজেই ফেসবুক কমেন্ট অপশন হাইড করতে পারবেন? এটা জানতে হলে নিচে দেয়া পোস্টটি শেষ পর্যন্ত দেখুন।

মিউচুয়াল ফ্রেন্ড লিস্ট হাইড


আপনি খুব সহজেই আপনার ফেসবুকের ফ্রেন্ডলিস্ট হাইড করে ফেলতে পারেন। কিন্তু তবুও আপনার ফেসবুকের ফ্রেন্ডলিস্ট দেখার আশঙ্কা থেকেই যায়। 

কারণ যে কেউ যখন আপনার ফেসবুক আইডি তে ভিজিট করবে তখন সে যদি আপনার ফ্রেন্ড গুলোর মধ্যে যে কারো ফ্রেন্ড হলে সে সমস্ত ফ্রেন্ড গুলোকে দেখতে পারবে।

তাই  মিউচ্যুয়াল বা পারস্পরিক বন্ধু বলা হয় এগুলোকে হাইড করার জন্য আপনাকে নিচের দেয়া পোস্টটি দেখতে হবে।

ফেসবুক ফলোয়ার অপশন ওপেন


আপনি যদি আপনাকে প্রেরণকৃত সমস্ত ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট গুলোকে আপনার আইডিতে ফলোয়ার হিসেবে যুক্ত করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই আপনার ফেসবুক আইডিতে ফলোয়ার অপশন ওপেন করতে হবে। 

আর কিভাবে ফেসবুকে ফলোয়ার অপশন ওপেন করবেন এটা নিয়ে এই ব্লগে আর একটি আর্টিকেল পোস্ট করা হয়েছে। 

যার মাধ্যমে আপনি শিখতে পারবেন কিভাবে ফেসবুক ফলোয়ার অপশন ওপেন করতে হয়।

আশা করি উপরোক্ত সেটিংগুলো অবশ্যই আপনার ফেসবুক আইডিতে করে রাখবেন, কারণ এই সমস্ত ফেসবুক সেটিং অতন্ত গুরুত্বপুর্ণ।

কি আসতে চলেছে ফেসবুকের নতুন আপডেট এর মাধ্যমে?

কি আসতে চলেছে ফেসবুকের নতুন আপডেট এর মাধ্যমে?

যে কোন কিছুকে পূর্বের চেয়ে আরো বেশি ব্যবহার উপযোগী করার জন্য এটিকে আপডেট দেয়ার প্রয়োজন হয়। 

পূর্বের আপডেটের হয়তো অনেক ধরনের সমস্যা থাকতে পারে যা ব্যবহারকারীদের ভোগান্তির সম্মুখীন করতে পারে।

ঠিক একি ক্ষেত্রে ফেইসবুক যেহেতু বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক ব্যবহৃত সোসিয়াল গণমাধ্যম এবং এতে প্রায় প্রতিদিনই কয়েক বিলিয়ন মানুষের আনাগোনা হয়।

তাই এর মধ্যে কোন সমস্যা থাকলে তা অবশ্যই আপডেটের মাধ্যমে সারিয়ে নিতে হয়।

প্রতিনিয়ত ফেইসবুক অথরিটি ফেসবুক আপডেটের মাধ্যমে ফেসবুকে তাদের ব্যবহারকারীর মধ্যে সহজ ভাবে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করে। 

বর্তমানে ফেসবুক আপডেট চলছে যার কারণে আমরা প্রায় সময় নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হয় কি সেই নতুন ফেসবুক আপডেট এই সম্পর্কে অবশ্যই সকলের জানা উচিত। 

ফেসবুক ডিজাইন


বর্তমানে প্রায় ফেসবুকের অনেক রকমের ডিজাইন রয়েছে যে সমস্ত ডিজাইনগুলো ব্যবহারকারীর জন্য নানান সময়ে ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। 

যার কারণে এই সমস্ত ফেসবুকের ডিজাইন গুলো কে পরিবর্তন করার জন্য ফেইসবুক অথরিটি টিম প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। 

এরই ধারাবাহিকতায় ফেসবুকের নতুন আপডেট ফেসবুকে চমকটি হয়েছে তা হলো ফেসবুকের রিডিজাইন যা অবশ্যই ব্যবহারকারীর মন কাড়বে।

মেসেঞ্জারে সাইজ কমানো


ফেসবুক মেসেঞ্জারে বর্তমানে সাইজ প্রায় 45 এমবি কাছাকাছি, কিন্তু ফেসবুক বর্তমান আপডেটের মাধ্যমে মেসেঞ্জারে সাইজ কমিয়ে আনবে এবং এটি ব্যবহারকারীর জন্য আরও বেশি উপযোগী করে গড়ে তুলবে। 

এছাড়াও ফেসবুক মেসেঞ্জারে প্রায় অনেক ধরনের সমস্যা রয়েছে যেগুলো থেকে মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীর একটি সমাধান এর আশায় থাকেন। 

আর ফেসবুকের নতুন আপডেট এর কারণে এই সমস্যার সম্মুখীন আপনি আর কখনো হবেন না।

আমেরিকাতে ফেসবুক ডেটিং ফিচারস


খুব শিঘ্রই চালু হতে চলেছে আমেরিকাতে ফেসবুক ডেটিং ফিচারস যার মাধ্যমে আপনি যার সাথে ডেটিং করতে চান তাদের সম্পূর্ণ একটি লিস্ট তৈরি করতে পারবেন। 

এবং তারপরে এখান থেকে আপনি একদম প্রাইভেট ভাবে তাদের সাথে ডেটিং করতে পারবেন, যার নাম থাকবে "সিক্রেট ক্রাশ" যা সাধারণত আমেরিকান ফেসবুক ব্যবহারকারীর জন্য একটি সুখবর।

এছাড়াও ফেসবুকে আরও নানান ধরনের নতুন আপডেট আসতে চলেছে যার মাধ্যমে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা নির্বিঘ্নে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবেন। 

তারা নানা হ্যাকারদের কাছ থেকে পুরোপুরি নিজেকে বিরত রাখতে পারবেন।

কারণ আপনার ফেসবুক ব্যবহারে পূর্বশর্ত হলো নিজেকে হ্যাকারদের কাছ থেকে বাঁচিয়ে রাখা। আর ফেসবুকের নতুন আপডেট এর মাধ্যমে আরো বেশি সহজ হয়ে উঠবে বলে আশা করা যায়।

কিভাবে সুন্দরী মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুজে বের করবেন?

কিভাবে সুন্দরী মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুজে বের করবেন?

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা ফেসবুকে তাদের বিপরীতধর্মী আইডির দিকে খুব বেশি নজর আরোপ করে।

কারণ তারা তাদের সময় গুলোকে খুব ভালোভাবে অতিক্রম করতে চায় এবং আপনি যদি একজন ছেলে হয়ে থাকেন এবং আপনার একটি ফেসবুক আইডি থাকে। 

তাহলে আপনি হয়তো প্রতিনিয়ত মেয়েদের ফেসবুক আইডির দিকে নজর দিয়ে থাকেন। আপনি হয়তো প্রতিনিয়ত এটা এই ধ্যান-ধারণা মাথায় রাখেন যে কিভাবে একজন মেয়ের ফেসবুক আইডি পাবো।

তবে আমরা অনেকেই মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুজে বের করার সময় নানা ধরনের জটিলতার সম্মুখীন হয়ে থাকি।

অনেকেই আবার দেখা গিয়েছে যে ফেক আইডির সাথে চ্যাট করে, যা মোটেও কাম্য নয় যা খোলা হয়ে থাকে ছেলে হয়ে মেয়েদের নাম দিয়ে এবং ওই মেয়ের ছবি দিয়ে। 

আর আমরা মনে করি এটা হয়তো মেয়েদের আইডি এবং আমরা রিকুয়েস্ট একসেপ্ট হয়ে গেলে আমরা চ্যাটিং করা শুরু করে দেই।  

কিন্ত অনেকসময় দেখা যায় যে আপনি যে ফেসবুক আইডির সাথে চ্যাটিং এর লিপ্ত হয়েছেন সেই আইডি আসলে মেয়ের ফেসবুক আইডি নয়।

তাহলে কিভাবে রিয়াল মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুজে বের করবেন? একটু জানতে হলে আজকের এই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত দেখুন।

ফেসবুক গ্রুপ


আপনি চাইলে ফেসবুক গ্রুপের মেম্বার লিস্ট কে কাজে লাগিয়ে মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুঁজে বের করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে শুধুমাত্র কোন একটি ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করতে হবে এবং তারপরে ওই গ্রুপের মেম্বার এর লিস্ট গুলো চেক করতে হবে। 

এখান থেকে প্রায় 98% যে সমস্ত ফেসবুক আইডি আপনার কাছে মেয়ে মনে হবে ফেসবুক আইডি মনে হয় তা আপনি কার্যকর ভাবে উপলব্ধি করতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি চাইলে ফেসবুক গ্রুপের সমস্ত এডমিন এবং মডারেটর এর লিস্ট চেকিং করতে পারেন। যেখান থেকে আপনি মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুঁজে বের করতে পারবেন।

ফেসবুক গ্রুপ কে কাজে লাগিয়ে মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুজে বের করা একটি যুগান্তকারী পন্থা হল আপনি চাইলে ওই গ্রুপে যতগুলো মেয়েদের নাম দিয়ে পোস্ট করা হয় সে সমস্ত আইডি গুলো খুঁজে বের করতে পারেন। 

এবং তাতে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট দিতে পারেন তাহলে আপনি ফেসবুক আইডি ব্যবহারকারীদের সাথে জয়েন হতে পারবেন।

ফেসবুক পেইজ


আপনি চাইলে ফেসবুক পেইজ কে কাজে লাগিয়ে মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুঁজে পেতে পারেন। 

এক্ষেত্রে আপনাকে যে কোন একটি বড় ফেসবুক পেজের কমেন্ট সেকশনে যেতে হবে, এবং তারপর এখান থেকে আপনি যতগুলো মেয়েদের রিলেটেড ফেসবুক আইডি দেখতে ওই সমস্ত ফেসবুক আইডি গুলো কে আপনি রিকোয়েস্ট দিতে পারেন। 

আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলছি এখানে থাকা প্রায় 99.99 শতাংশ ফেসবুক আইডি রিয়াল হবে। যার মানে হলো এখান থেকে আপনি যে সমস্ত ফেসবুক আইডি পাবেন ওই সমস্ত ফেসবুক আইডিতে আপনি যদি রিকোয়েস্ট দেন তাহলে এই সমস্ত ফেসবুক আইডি কখনো ভুয়া হবার নয়।

আর এভাবে আপনি ফেসবুক পেইজ কে কাজে লাগিয়ে মেয়েদের ফেসবুক আইডি সহজে খুঁজে বের করতে পারবেন।

আপনি যার সাথে চ্যাট করছেন সেটা কি মেয়ের ফেসবুক আইডি?

আমরা অনেকেই ফেসবুকে মেয়েদের নামধারী অনেক আইডির সাথে চ্যাটিং কাজে ব্যস্ত থাকলেও আমাদের মধ্যে প্রায় একটি প্রশ্ন জাগে আমরা যার সাথে চ্যাটিং কাজে লিপ্ত আছে সে আসলেই কি রিয়াল? 

এটা আসলেই খুবই কঠিন একটি প্রশ্ন যার সমাধান আপনাকে প্র্যাকটিক্যালি করতে হবে।

আপনি চাইলে আপনার অপরপাশের ব্যক্তিটিকে যাচাই করার ক্ষেত্রে তিনটি সাধারণ স্টেপ ফলো করতে পারেন।

কল দিয়ে
▪ বিভিন্নভাবে যাচাই করে
▪ দেখা করার কথা বলে

কল দিয়ে


আপনি যদি ফেসবুক ব্যবহার করেন এবং ফেসবুক মেসেঞ্জার এর মাধ্যমে আপনি চাইলে যেকোনো ব্যক্তিকে কল দিয়ে তাকে যাচাই করে নিতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে শুধুমাত্র ওই ব্যক্তির কিছু পারমিশন নিতে হবে যে সে আসলে কলটা রিসিভ করবে কিনা। 

এটা মোটেও কঠিন কোন ব্যাপার নয়, কারণ আপনি যখনই যে কারো সাথে কয়েক মাস কিংবা তার চেয়েও কম বেশি সময় চ্যাটিং কাজে লিপ্ত থাকবেন তখন তার কাছ থেকে এই পারমিশন টুকু আপনি এমনিতেই চেয়ে নিতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনি তাকে বলতে পারেন যে কয়েক সেকেন্ডের জন্য ওই ব্যক্তির ভয়েস আপনি শুনতে চান,  তাহলেই আপনার কাজ হয়ে যাবে। 

আপনি যখনই কল দিবেন এবং ওই ব্যক্তিটির ভয়েস শুনতে পারবেন তখনই আপনি নিশ্চিত হয়ে যাবেন আপনি যার সাথে চ্যাটিং কাজে লিপ্ত আছেন আসলে মেয়ের ফেসবুক আইডি কিনা।

বিভিন্নভাবে যাচাই করে


আমি চাইলে ওই ব্যক্তিকে বিভিন্ন ভাবে যাচাই করে দেখতে পারবেন আপনাকে নানামুখী প্রশ্ন করতে হবে।

এবং এমনিতেই কোনো কারণ ছাড়াই তার সাথে দেখা করার কথা বলবেন যদি হয় তাহলে আপনার সমস্ত কিছুকে রিজেক্ট করার পার্সেন্টেজ বেশি হবে। 

এতে করে আপনি যাচাই করে নিতে পারবেন আপনার চ্যাটিং কিত ব্যক্তিটি আসলে রিয়েল আইডি নাকি ভুয়া ফেসবুক আইডি।

দেখা করার কথা বলে


আপনি চাইলে যে কাউকে দেখা করার কথা বলে তার সমস্ত কিছুকে যাচাই করে নিতে পারবেন। 

এক্ষেত্রে কাকুতি-মিনতি করে তার পাত্তা করে নিতে হবে এবং তারপরে তার সাথে দেখা করার কথা বলতে হবে।

এক্ষেত্রে আপনি যদি এটা লক্ষ করেন যে বেশ কিছুদিন চ্যাটিং করার পরেও এবং কিছু ক্ষেত্রে একেবারে ক্লোজ হওয়ার পরে ওই ব্যক্তিটি আপনাকে ক্ষেত্রে পাত্তা না দেয় তাহলে বুঝে নিবেন এটা আসলে আপনি যার সাথে চ্যাটিং করছেন এটি আসলে মেয়েদের ফেইসবুক আইডি নয়।

আর উপরোক্ত পন্থা গুলো কাজে লাগে আপনি খুব সহজেই মেয়েদের ফেসবুক আইডি খুঁজে পাবেন।

ডিজেবল, ফেসলক, একশন ব্লক থেকে কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব?

ডিজেবল, ফেসলক, একশন ব্লক থেকে কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব?

অনেক সময় দেখা যায় আমাদের নানা কার্যকলাপের কারণে আমাদের ফেসবুক আইডি বিভিন্ন ধরনের সমস্যায় জর্জরিত হয়। 

এর ফলে অনেক সময় আমাদের ফেসবুক আইডি বন্ধ হয়ে যায় অথবা ডিজেবল সংক্রান্ত বিভিন্ন জটিলতায় ভুগে।

এরপরে আমাদের প্রায়ই এই প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয় কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব? 

একটা কথা  একেবারে স্পষ্ট করা যাক আর সেটা হল ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সমাধান কিন্তু একই রকমের হয় না। 

এখানে ফেসবুক আইডির সাথে অনেক কিছুই হয় যার সমাধান ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে।

তবে আজকের এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা করবো ভিন্ন ভিন্ন ফেইসবুক সংক্রান্ত সমস্যা গুলো থেকে কিভাবে আপনার ফেসবুক আইডি ফিরে পাবেন?

ফেসলক সমস্যায় থেকে কিভাবে আইডি ফিরে পাব?


অনেক সময় দেখা যায় আমাদের ফেসবুক আইডি ফেসলক সংক্রান্ত নানা ধরনের জটিলতায় ভুগে যার ফলে আমরা আমাদের ফেসবুক আইডিতে লগইন করতে পারিনা। 

আর লগইন করার পরেও দেখা যায় যে এই আইডিটি কিছুদিনের জন্য লক হয়ে যায়।

এক্ষেত্রে আপনাকে ওই সমস্যা থেকে ফেসবুক আইডি ফিরে পাওয়ার জন্য রীতিমতো সংগ্রাম করতে হয়। 

বলাবাহুল্য যে আপনি যদি পদ্ধতি অবলম্বন না করেন তাহলে আপনি এই সংক্রান্ত সমস্যা থেকে আর কখনোই মুক্তি পাবেন না। ফলশ্রুতিতে আপনার ফেসবুক আইডিটি হারাবেন।

কিভাবে ফেসলক সংক্রান্ত সমস্যা থেকে আপনার ফেসবুক আইডি ফিরে পাবেন? এজন্য আপনি চাইলে নিচে টিউটোরিয়ালটি দেখে আসতে পারেন।

ডিজেবল সংক্রান্ত সমস্যা থেকে কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাবেন?


ফেসবুকে আপনি যদি তাদের দেয়া পলিসি অমান্য করেন তাহলে আপনাকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়, এটা আসলে আপনি ভোগ করেন না এই সাজা গুলো আপনার ফেসবুক আইডিকে দেয়া হয়।

আর এই সংক্রান্ত নানা ধরনের জটিলতার মধ্যে রয়েছে ডিজেবল সংক্রান্ত সমস্যাগুলো।

এই সমস্যা গুলোর কারণে আপনার ফেসবুক আইডিতে আপনি পার্মানেন্টলি লগইন করতে পারেন না যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি এই সংক্রান্ত সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। 

এক্ষেত্রে আপনাকে  সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আপনার একটি পরিচয় পত্র অথবা ভেরিফিকেশন কার্ডের দরকার হয় যাতে। 

আপনার নাম এবং জন্মদিন এর ডিটেলস গুলো আপনার ফেসবুকের সাথে মিল রাখা লাগে তারপরে আপনি যদি তাদের কাছে সাবমিট দেন। তাহলে আপনার ফেসবুক আইডি আপনি ফিরে পান।

তবে অনেকের কাছে কোন ধরনের ভেরিফিকেশন কার্ড না থাকার কারণে তারা তাদের ফেসবুক আইডি ফেরত আনতে সক্ষম হন না।

আর কিভাবে আপনি এরকম ডিজেবল আইডি গুলোকে কোন ধরনের ভেরিফিকেশন কার্ড ছাড়াই ফিরিয়ে আনবেন? এটা আমি একটি টিউটোরিয়ালে আমি আলোচনা করেছি।
আশা করি উপরের দেয়া পোস্টটি দেখার মাধ্যমে আপনি ডিজেবল সংক্রান্ত সমস্যা থেকে আপনার ফেসবুক আইডি ফিরে পাবেন।

একশন ব্লক সম্পর্কিত সমস্যা থেকে কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব?


আপনি হয়তো অনেক সময় ফেসবুকে আপনার বন্ধু বান্ধবের পোস্টে কমেন্ট কিংবা কোন ধরনের রিঅ্যাকশন করতে পারেন না। 

দেখা যায় যে আপনি যদি তাদের পোস্টে কোন ধরনের রিয়েক্ট করেন তাহলে এটি কিছুক্ষণ পরে আবার রিমুভ হয়ে যায় এটি। কেন হয় এই সমস্যাটির? 

এই সমস্যাটি হওয়ার মূল কারণ হল আপনি যদি ফেসবুকে সব সময় একই ধরনের ফিচারস ব্যবহার করেন তাহলে ওই ফিচারস  একসময় ব্লক হয়ে যায়।

এখানে  ফিচারস বলতে আপনি যদি শুধুমাত্র  সমস্ত বন্ধুদের স্ট্যাটাসে লাইক দেন তাহলে আপনি কিছুদিনের মধ্যে লাইক ব্লক খেতে পারেন। 

অথবা কারো স্ট্যাটাসে যদি আপনি প্রতিনিয়ত একই ধরনের কমেন্ট পাবলিশ করেন তাহলে আপনার ফেসবুক আইডিতে কমেন্ট ব্লক সম্পর্কিত সমস্যা হতে পারে।

যার ফলে আপনি কিছুদিনের জন্য এই ফিচারগুলো ব্যবহার করতে পারবেন না।

আর কিভাবে আপনি আপনার ফেসবুক আইডি এ ধরনের ফিচারস ব্লক সমস্যা থেকে ফিরিয়ে আনবেন? 

এটা জানতে হলে নিচে দেয়া পোস্টটি শেষ পর্যন্ত দেখুন।
আশাকরি আপনি উপরের দেয়া সমস্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে জেনেছেন এবং আপনার ফেসবুক আইডি ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছেন।

এই কারণে ফেসবুক বন্ধ সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগতে পারেন আপনিও?

এই কারণে ফেসবুক বন্ধ সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগতে পারেন আপনিও?
আপনি যখনই যে কোন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করবেন তখন আপনাকে অবশ্যই ওই প্ল্যাটফর্মের দেয়ার কিছু বাধ্যবাধকতা মানতে হয়।

যার মানে হল এই প্ল্যাটফর্মটি আপনি যদি ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনি তাদের দেয়া কিছু নিয়ম অবশ্যই পালন করতে হয়। নয়তো কর্তৃপক্ষ বাধ্য হয় আপনার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিতে পারে।

কারণ সবকিছুই ব্যবহারের একটা লিমিট রয়েছে যে লিমিট আপনি একজন ব্যবহারকারী হয়ে কখনোই করতে পারবেন না, অর্থাৎ টিকে থাকতে হলে আপনাকে নিয়ম অবশ্যই পালন করতে হবে।

ঠিক এরকমই ভাবে ফেসবুকের কিছু করার নিয়ম রয়েছে, যে নিয়ম গুলো অবশ্যই আপনাকে পালন করতে হয় যদি আপনি এখানে টিকে থাকতে চান।

অন্যথায় যে কোন সময় আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যেতে পারে। কি সেই নিয়মগুলো যার কারণে ফেসবুক বন্ধ হয়ে যেতে পারে?

প্রোফাইল কমপ্লিট


ফেসবুকে আপনি যখনই নতুন একটি একাউন্ট খুলবেন তখন আপনি আপনার নিজস্ব আওতাধীন একটি প্রোফাইল পান, যেখানে আপনি আপনার মনের ভাব আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনার অবশ্যপালনীয় কয়েকটি বিষয় রয়েছে যা ফেসবুক এর কাছ থেকে নির্বাচন করা হয়েছে।

অবশ্য পালনীয় বিষয় গুলোর মধ্যে একটি হলো আপনার প্রোফাইল পুরোপুরি কমপ্লিট করতে হবে। প্রোফাইল কমপ্লিট করার ক্ষেত্রে আপনি আপনার প্রোফাইলের সমস্ত ডিটেলস গুলো দিতে হবে।

যেমন: একটি ভালো স্পষ্ট প্রোফাইল পিকচার, কভার ফটো, আপনার জব ডিটেইলস, হোম এড্রেস সহ আরো অনেক। এগুলো অবশ্যই আপনাকে সঠিক তথ্য দিয়ে পরিপূর্ণ করতে হবে।

এছাড়া আপনি অপেরা মিনি কিংবা অন্য কোন ব্রাউজার দিয়ে ফেসবুক আইডি ব্যবহার করলে আপনি যখন আপনার ফেসবুক প্রোফাইল ভিজিট করবেন তখন দেখতে পারবেন এটি কত পার্সেন্ট কমপ্লিট হয়েছে।

এই কারণে ফেসবুক বন্ধ সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগতে পারেন আপনিও?


এই প্রোফাইল কমপ্লিট এর হার অবশ্যই আপনাকে শতভাগ করতে হবে। হয়তো আপনার কারণে ফেসবুক একাউন্ট বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

পর্নোগ্রাফি


আপনি যদি আপনার ফেসবুক প্রোফাইল থেকে বিভিন্ন ধরনের বাজে স্ট্যাটাস দ্বারা পূর্ণ করে দেন যেগুলো পর্নোগ্রাফি রিলেটেড তাহলে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ আপনার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিবে।

কারণ ফেসবুক কখনো এসব খারাপ অশ্লীল পর্নোগ্রাফিক এলাও করে না, এটি ততক্ষণ পর্যন্ত ফেসবুকে দেখাবে যতক্ষণ না এর সম্পর্কে কেউ তাদের কাছে রিপোর্ট করবে।

যখনই আপনার এই অশ্লীল পর্নোগ্রাফি যেকোনো ব্যবহারকারীর বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াবে এবং ফেসবুকের সিকিউরিটি টিমের কাছে তা সাবমিট করবে তখনই এগুলো আপনার বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

এক্ষেত্রে প্রথমে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট আংশিক কিছুদিনের জন্য বন্ধ করে দিবে, অথবা নানা ধরনের ফিচারস ব্লক করে দিবে।

আপনি যখন তাদেরকে এই সতর্কবাণী এড়িয়ে আবারো কোন পর্নোগ্রাফি ফেসবুকে আপলোড দিবেন তখনই তারা আপনার একাউন্ট পার্মনেন্টলি বন্ধ করে দিবে।

তাই অবশ্যই আপনাকে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ঠিক রাখতে হলে সমস্ত খারাপ পাপাচার থেকে কয়েক শত হাত দূরে থাকুন।

সন্ত্রাসী মূলক কর্মকান্ড


আপনি যদি ফেসবুক ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী মূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করেন যেমন ড্রাগস-এর ব্যবসা ইত্যাদি তাহলে আপনার ফেসবুক বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

শুধু যে এর কারণে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাবে তা কিন্তু নয়, এটি আপনার ব্যক্তিজীবনে ভয়াবহ হুমকি নিয়ে আসতে পারে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ যখন কয়েকবার আপনার কাছ থেকে এরকম অস্বাভাবিক আচরণ লক্ষ করবে তখন তারা এগুলো আপনার লোকেশন এ থাকা প্রশাসনকে জানিয়ে দিতে পারবে।

এক্ষেত্রে যদি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের ধরনের স্টেপ নাও নেয় তাহলেও ফেসবুকে নানা ক্যাটাগরির প্রশাসনের লোকেরা বিরাজমান করে প্রতিনিয়ত। যাদের হাত থেকে বেঁচে থাকা প্রায় অসম্ভব।

যখনই আপনি তাদের নজরদারির মধ্যে পড়বেন তখনই তারা আপনার লোকেশন খুজে বের করে আপনাকে এরেস্ট করতে বাধ্য হবে। এতে আপনার কয়েক মেয়াদে সাজা হতে পারে।

তাই এই সমস্ত জটিলতায় বুকার আগে অবশ্যই এগুলো থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে ফেলুন। কখনোই ফেইসবুক ব্যবহার করবেন না সন্ত্রাসীমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য।

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত


আপনি যদি অন্য কোন ধর্মকে টার্গেট করে ফেসবুকে এরকম কিছু প্রচার করেন যা ওই ধর্মের লোকের পক্ষে রাগের কারণ হয়ে দাঁড়ায় তাহলে কিন্তু এটি আপনার বিপদ ডেকে আনবে।

আপনি কোন ধর্মকে ছোট করে দেখতে পারবেন না, অন্য ধর্মের বিষয়ে আমি বলতে পারিনা তবে ইসলাম ধর্মে এটা কখনোই সমর্থন করেনা।

ইসলাম ধর্মের মধ্যে সব ধর্মের লোককে শ্রদ্ধা করা উচিত, তাদের টার্গেট করে কোন অশ্লীল কুরুচিপূর্ণ মতবাদ করা কখনও ইসলাম সমর্থন করে না।

তাছাড়াও আপনি ধর্ম নিয়ে কখনো বাড়াবাড়ি করবেন না এটা ইসলামে স্পষ্ট রয়েছে। তবু আপনি এসব বিধি-নিষেধ যদি ভেঙ্গে ও কোন ধর্মের অনুভূতিতে আঘাত করেন তাহলে এটি আপনার জন্য ভয়ঙ্কর বিপদ ডেকে আনতে পারে।

এক্ষেত্রে যখন যে কেউ আপনার ওই ফেসবুক আইডিতে রিপোর্ট করবে তখন এটি সরাসরি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ রিভিউ করবে, আর যদি সব কিছু ঠিক থাকে তাহলে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিবে।

শুধু যে এক্ষেত্রে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ধরনের পদক্ষেপ নিবে তা কিন্তু নয়, এক্ষেত্রে আপনি যে দেশের ভুক্তভোগী হন না কেন সেই দেশের সরকার আপনার বিপক্ষে দাঁড়াবে এবং এটি আপনার জন্য ভয়াবহ হতে পারে।

তাই  ব্যক্তিস্বার্থে এবং আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট রক্ষার্থে অবশ্যই ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানতে পারে এ সমস্ত কথাগুলো থেকে বিরত থাকবেন। যা আপনার জন্য অবশ্যই শোভনীয়।

ভিডিও


আপনি কি এটা জানেন যে ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যেতে পারে? তবে সকল ভিডিও আপলোডের ক্ষেত্রে এটা কাম্য নয়।

এক্ষেত্রে কিছু সংখ্যক ভিডিও যেমন নির্যাতনের দৃশ্য , ধর্ষণের দৃশ্য, সহ আরো অনেক ধরনের আপত্তিকর মুহূর্তের ভিডিও আপনার ফেসবুক একাউন্ট বন্ধ করার জন্য যথেষ্ট।

তাই অবশ্যই ফেসবুকে কোন কিছু আপলোড দেওয়ার ক্ষেত্রে উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন আপনার ফেসবুক একাউন্ট বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

ফ্রি ফেসবুক চালানোর উপায়| এবার কোন ডাটা চার্জ ছাড়া ব্যবহার করুন ফেসবুক|

ফ্রি ফেসবুক চালানোর উপায়| এবার কোন ডাটা চার্জ ছাড়া ব্যবহার করুন ফেসবুক|

আমরা যখন কোন  জিনিস ফ্রি ভাবে নিজের আয়ত্বে নিয়ে আনতে পারি তখনই আমরা সবচেয়ে ভালো ফিল করি। আর এক্ষেত্রে যদি হয় বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, তাহলে তো আর কথাই নেই।

আপনি হয়তো ফেসবুক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনো বাধ্যবাধকতা মানেন না, আপনি হয়তো সারাদিন ফেসবুকের সাথে কানেক্টেড থাকতে চান। এক্ষেত্রে তো অবশ্যই মেগাবাইটের দরকার হবে।

অনেক সময় আমাদের আর্থিক জটিলতার কারণে আমাদের ফোনে মেগাবাইট ঢোকানোর সুযোগ হয়ে ওঠে না, যা আমাদের ফেসবুক থেকে দূরে সরিয়ে রাখে।

তবে এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা করব কিভাবে আপনি ফ্রিতে ফেসবুক ব্যবহার করবেন। যাতে করে কোন ডাটা চার্জ হবে না।

আপনি হয়তো ফ্রিতে ফেসবুক চালানোর ক্ষেত্রে যে কোন অ্যাড্রেস বারে গিয়ে  এই এড্রেসটি কে টাইপ করেন- free.facebook.com

এই লিঙ্কে চলে যাওয়ার পর আপনি অবশ্যই ফ্রিতে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারেন, তবে এক্ষেত্রে রয়েছে কিছু বাধ্যবাধকতা।

এই লিংকের মাধ্যমে আপনি যখন ফেসবুক ব্যবহার করেন তখন আপনি চাইলেই ফেসবুকে পাবলিশ করা যে কারো স্ট্যাটাসে ছবি দেখতে পারেন না।

তবে আপনি শুধুমাত্র এই ব্যক্তিটির প্রোফাইল পিকচার দেখতে পারেন যখন আপনি ফ্রি মুডে থাকে, তবে আপনার মনোবাসনা হয়তো  এটা নয়।

আপনি এটা চান যে ফ্রিতে ফেসবুক ব্যবহার করবেন আর এমন ভাবে ফ্রী ফেসবুক ব্যাবহার করবেন যাতে করে আপনি এতে লোড করা ছবিগুলো দেখতে পাবেন।

এটা কি আদৌ সম্ভব? সম্ভব হবে না কেন? পৃথিবীর বিদ্যমান জটিল সমস্ত কিছুই সম্ভব। আর এটা তো শুধুমাত্র ছবি সহ ফ্রিতে ফেসবুক ব্যবহার করা।

আপনি হয়তো ফেসবুক লাইট নামক অ্যাপস এর কথা কখনো শুনেছেন, আপনি হয়তো এর সম্পর্কে অবগত আছেন যে এই আপ্সকে আপনি চাইলে দুইভাবে ব্যবহার করতে পারেন।

মধ্যে একটি হল ডাটা মুড আর অন্যটি হলো ফ্রী মুড, এখানে ডাটা মুডে আপনাকে অবশ্যই মেগাবাইট খরচ করতে হবে, আর অন্যদিকে ফ্রি মুডে আপনি এটি ফ্রী ব্যবহার করতে পারবেন।

ঠিক একই রকম ভাবে ফ্রি মুডে যখন আপনি ডাটা খরচ না করবেন তখন আপনি কোন ছবি দেখতে পাবেন না, এক্ষেত্রে আপনাকে ডাটা অবশ্যই খরচ করতে হবে।

তবে ঠিক ওই ফেসবুক লাইট অ্যাপস টি কে মুড করে এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে করে আপনি কোন ডাটা খরচ না করেই এটি ব্যবহার করতে পারেন।

অ্যাপসটি লিংক আমি নিচে দিয়ে দিচ্ছি আপনি চাইলে এখান থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

ফ্রী ফেসবুক লাইট

এই অ্যাপসটির মাধ্যমে আপনি যখনই আপনার ফেসবুক আইডিতে লগইন করবেন তখনই সারাক্ষণ ফ্রি মুডে ফেসবুক করতে পারবেন।

এতে আপনার কখনো কোন ডাটা খরচ হবে না, সারাক্ষণ আপনি ফেসবুকের জগতে বিচরণ করতে পারবেন।