ফেসবুক থেকে বিদায় নেওয়ার পোস্ট দিবেন?

ফেসবুক থেকে বিদায় নেওয়ার পোস্ট দিবেন?

ফেসবুক যখনই আপনার বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াবে, অথবা এই ফেসবুকে থাকা কোন প্রিয়জনের কাছ থেকে আপনি যখনই কষ্ট পাবেন তখন আপনি কি চাইবেন?

নিশ্চয়ই আপনি ফেসবুক থেকে বিদায় নিতে চাইবেন? আর এই ফেসবুকে থাকা বহুসংখ্যক বন্ধুদের কাছ থেকে বিদায় নেয়ার জন্য একটি আবেগপূর্ণ পোষ্ট হওয়া তো অবশ্যই প্রয়োজন।

তুই আবেগপূর্ণ স্ট্যাটাসটি দ্বারা যে কেউ এটা উপলব্ধি করতে পারে যে কেউ একজন তাদের কাছ থেকে বিদায় নিচ্ছে, এবং আপনাকে ফেসবুকে থাকার অনুরোধ জানাতে পারে।

তবে ফেসবুকে বিদায় নেয়ার সময় আপনার স্ট্যাটাসটি কেমন হওয়া দরকার? যে স্ট্যাটাসটি দ্বারা যে কাউকে আপনি ইমপ্রেস করতে পারবেন।

ফেসবুকে বিদায়ের স্ট্যাটাস দেওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কয়েকটি বিষয় লক্ষ রাখতে হবে, আপনাকে স্ট্যাটাসটি এমন ভাবে লিখতে হবে যাতে করে এই স্ট্যাটাসে এ কারণে যে কেউ বিরক্তিবোধ না করে।

এক্ষেত্রেও স্ট্যাটাস টির মধ্যে আপনাকে এমন কথার বাহার ফুটিয়ে তুলতে হবে যেগুলো দ্বারা যে কেউ মুগ্ধ হয়।

তবে ঘাবড়ানোর কোনো দরকার নেই, বিদায় স্ট্যাটাসটি আপনাকে লিখতে হবে না। আপনি চাইলে নিচের দেয়া কয়েকটি স্ট্যাটাস থেকে আপনার পছন্দ অনুযায়ী যে কোন একটি নিয়ে আপনার টাইমলাইনে পোষ্ট করে দিন।

.
ফেসবুকে থাকাকালীন সময়ে গুলোতে হয়তো অনেকেরই বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছি অনেক সময়; এখানে এসে অনেক নতুন বন্ধু বান্ধব পেয়েছি।

এবং আপনাদের কাছ থেকে অনেক ভালোবাসা পেয়েছি, তবে দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে একটি কথা আজ বলতে চাই, ফেসবুক প্লাটফর্ম টি আর আমার জন্য নয়। বিদায় নিচ্ছি বন্ধুরা আপনারা সবাই ভালো থাকবেন।
.


..
ফেসবুকে দীর্ঘ পদযাত্রার হয়তো অনেক সময় অনেকেরই বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, অনেকেরই মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছি এই আমি।

ফেসবুকে থাকাকালীন সময়ে নিজের আত্মীয়-স্বজন এর মতই বুকে আগলে নিয়েছিলাম অচেনা থেকে চেনা হওয়া প্রিয় মানুষগুলোকে।

ওই সময় গুলোতে ভেবেছিলাম হয়তো এরাই আমার সবচেয়ে আপন মানুষগুলো, তবে  এতদিন আমি স্বপ্নের মধ্যে ছিলাম, স্বপ্ন ভেঙ্গে দেখলাম কই, কেউই আমার আপন নেই।

সবই মিথ্যা নাটক আর এই গল্পটা এই সমস্ত ভুল, এ কারণে আজকে এই সিদ্ধান্ত নিলাম যে ফেসবুকে আমি আর থাকব না, প্ল্যাটফর্ম টা আমার জন্য।

সবাই ভাল থাকবেন, বিশেষ করে ভালো থাকবেন ওই সমস্ত  স্বার্থান্বেষী মানুষেরা যাদের কারণে আজকে আমি ফেসবুক থেকে বিদায় নিতে বাধ্য হচ্ছি।
..

আপনি চাইলে উপরের দুইটি স্ট্যাটাসের মত যে কোন স্ট্যাটাস ফেসবুকে পাবলিস করতে পারেন যখন আপনি ফেসবুক থেকে বিদায় নিবেন।

শুভ জন্মদিন| শুভ জন্মদিন শুভেচ্ছা এসএমএস এর ভান্ডার|


জন্মদিন মানেই হলো জীবন থেকে একটি বছর চলে যাওয়া আর নতুন বসন্তের খুঁজে জীবনকে আবার পরিচালনা করা।

যখন কারো জন্মদিন থাকে তখন আমরা নানানভাবে সেই ব্যক্তিটি কে শুভেচ্ছা জানানোর চেষ্টা করি। চেষ্টা করি ভুলিয়ে দিতে তার ফেলে আসা সকল দুঃখ বেদনা কে।

আর সেই ব্যক্তিটি কে শুভেচ্ছা জানানোর মাধ্যমে আমরা হয়ে উঠি তার সমস্ত প্রিয় জনের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কেউ। জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানোর অনেকগুলো পন্থা আছে।

তবে আমরা যে কারো জন্মদিনে থাকি শুভেচ্ছা জানানোর জন্য প্রতিনিয়ত ও তার কাছে নতুন কোন এসএমএস সেন্ড করি।

এতে করে ওই ব্যক্তিটি কিছুটা আনন্দ অনুভব করে, এবং এটা মনে করে যে তার জন্মদিন মনে রাখার জন্য হয়তো কেউ একজন এই পৃথিবীতে আছে।

আর এই ফলশ্রুতিতে এই পোস্টটিতে আমি আলোচনা করেছি শুভ জন্মদিনের কিছু অসাধারণ এসএমএস নিয়ে, যা শেয়ার করতে পারবেন আপনার প্রিয়জনের সাথে।

------
আজকের এই জন্মদিনে কি দিব তোমায় উপহার? আমার এই ছোট্ট ঝুড়ি তে শুধু আছে ভালোবাসা নেই তো আর কোন কিছুর সমাহার`


আজকের এই জন্মদিনে কি দিব তোমায় উপহার? আমার এই ছোট্ট ঝুড়ি তে শুধু আছে ভালোবাসা নেই তো আর কোন কিছুর সমাহার`

আকাশের পানে তাকিয়ে দেখো ওই লাল সূর্যটা আজ হাসছে, পাখিগুলো গান গাইছে, গাছেরা নাচিতেছে আপন তালে, তাহলে সবাইকে বলেছি আমি তোমাকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে"

চলার পথে তোমার সাথে বেশি ঝগড়া হয়েছে, তর্কাতর্কি ও কম হয়নি, তবুও আরেকটি বসন্তে পাড়ি জমিয়েছে আমরা দুজনে একসাথে,

সুন্দর এই ভুবনে সবচেয়ে আনন্দময় জীবন হোক তোমার, যে জীবনটাতে ধরা দেবে না কোন দুঃখ, সারাক্ষণ হাসি আর আনন্দে ভরে যাবে প্রতিটি ক্ষণ`

আমি পুরোপুরি কৃতজ্ঞ আজকের এই দিনটার উপর, কারণ এই দিনেই জন্মেছিলে তুমি সুন্দর ধরার বুকে' যার ফলশ্রুতিতে পেয়েছিলাম তোমার মত একজন অসাধারণ প্রিয় মানুষ`


শুভ জন্মদিন| শুভ জন্মদিন শুভেচ্ছা এসএমএস এর ভান্ডার|


আমার ছোট্ট পরী, তুই আমার জীবনে দিনের আলো রাতের তারা। তোর জীবনের প্রতিটা দিন হয়ে উঠুক আনন্দময় আর খুশিতে ভরপুর। শুভ জন্মদিন"

সূর্যের মতো তেজি হও, ফুলের মতো নরম যেখানেই যাও ভালোবাসা পাও এই আশীর্বাদই করি।জন্মদিনে অনেক আদর আর ভালোবাসা।

তোমার প্রতিটা জন্মদিন খুব সুন্দর মুহূর্ত আর স্মৃতি নিয়ে আসে। তোমার হাসি দেখে আমার প্রাণ জুড়িয়ে যায়। সারাজীবন এভাবেই হেসে-খেলে কাটাও, এই প্রার্থনাই করি। শুভ জন্মদিন"

জীবনের পাতা থেকে হারিয়ে গেছে আরেকটি বছর, হয়তো গত বছরে কত দুঃখ কষ্টে লেগেছিল তোমার জীবনে, আঁধারে ঘেরা এ সমস্ত দিন গুলো পিছনে ফেলে পাড়ি জমিয়েছে নতুন একটি ক্ষণে"
এটাই তো তোমার শুভ জন্মদিন`

দেখতে দেখতে তুমি অনেক বড় হয়ে গেলে,
জীবনে জড়িয়ে গেলে আরেকটি নতুন বছরে` তবুও  তুমি আমার কাছে রয়ে গেছো সেই আগের মতো,হোক সেটা ভালোবাসায় কিংবা মায়ায়"

ফেলে আসা বছরে হয়তো অনেক কষ্টের সম্মুখীন হয়েছ তুমি, জীবনের মানেটা বুঝে নিয়েছো তুমি, তবে এই শুভ জন্মদিনে নতুন বছরে হকনা কোন দুঃখ তোমার, এই শুভ আশা শুধুই আমার"।


বিচিত্র এই ধরণীর বুকে দিবে না কখনো দুঃখ ধরা তোমায়, সুখের অনাবিল ছায়া ভড়ে যাবে জীবন তোমার, এই কামনায় জানাই তোমায় শুভ জন্মদিন"


শুভ জন্মদিন| শুভ জন্মদিন শুভেচ্ছা এসএমএস এর ভান্ডার|

আজকে সমস্ত পাখিগুলো একত্র হয়েছে, মরা গাছগুলিতে নতুন পাতা গজিয়েছে, ফুরিয়ে গিয়েছে সমস্ত দুঃখের সাগর'
হাতের নাগালে এসেছে তোমার শুধুমাত্র আনন্দের প্রহর' কারণ আজকে তোমার শুভ জন্মদিন"

জীবনে চলার পথে হয়তো তুমি একবার থমকে গিয়েছিলে, এটা কি কোন স্বপ্ন ছিল? তাহলে কেন এভাবে থমকে গিয়েছিল তুমি , সমস্ত দুঃখ যেন গ্রাস করেছিল তোমার, তবুও তো তুমি দমে যাওনি, পিছনের সমস্ত দুঃখ গুলো ভুলে পাড়ি জমিয়েছো নতুন একটি বসন্তের খুঁজে, আর এটাই তোমার শুভ জন্মদিন""

আজকের এই দিনের মতো তোমার জীবনের প্রত্যেকটি দিন হোক শুভ ময়, দুঃখ যেন না দেয় তোমার, শুভক্ষণ থাকে সব সময়"

রাত যায় দিন আসে,  সূর্যটা আকাশে ভাসে, সবাই তাকে সুদিনের আশায়, আর আমি থাকি বন্ধু তোমার জন্মদিনের আশায়"

অতীতের সমস্ত না পাওয়ার দুঃখের ছড়াছড়ি গুলো ভুলে, এগিয়ে চলো নতুন গন্তব্যের পথে, এগিয়ে চলো নতুন বসন্তের খুঁজে"

সুন্দর এই ভুবনে সুন্দরতম জীবন হোক তোমার, পুরন হোক প্রতিটি স্বপ্ন, প্রতিটি আশা, বেঁচে থাকো হাজার বছর । ** শুভ জন্মদিন *

রাজার আছে অনেক ধন, আমার আছে সুন্দর মন, পাখির আছে ছোট্ট বাসা, আমার মনে একটি আশা, দিবো তোমায় ভালোবাসা।


খুশির আকাশে পাল তুলে যেও চিরদিন, হাসি আর গানে শোধ হয়ে যাবে যত ঋন, আলোর পরশে ভোর হয়ে যাবে এই রাত, কোনদিন ছেড়ে দিওনা এই বন্ধুত্বের হাত।

“জন্মদিন প্রতি বছর আসবে, কিন্তু সময় কখনো থেমে থাকবে না। সময়ের সঠিক ব্যবহার না করলে একটার পর একটা জন্মদিন আসবে কিন্তু জীবনে সফলতা আসবে না। তোমার ভবিষ্যতের উন্নতি কামনা করে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।“


আজকের এই রাত-তোমার জন্য দেখে আনুক সুখময় নতুন এক প্রভাত, আজকের এই দিন-তোমার জন্য হোক কষ্টহীন, আজকের এই সময়-টা সুধু তোমার জন্য আর তো কারো নয়..জানায় শুভ জন্মদিন- তোমার জন্যে আজ পৃথিবীটা হয়ে যাক রঙিন.. শুভ জন্মদিন!


“শুভ জন্মদিন দোস্ত। ৫০০ টাকা ধার দিতে পারবি? তোরে জন্মদিনের উপহার দিবো।“

তাহলে আজকে এই পর্যন্ত। উপরের দেওয়া শুভ জন্মদিন শুভেচ্ছা এসএমএস গুলো এখান থেকে কপি করে শেয়ার করুন আপনার প্রিয় মানুষটার জন্মদিনে। 

ভালোবাসা দিবসের sms | Valentine's Day Sms বাংলায় |

ভালোবাসা দিবসের sms | Valentine's Day Sms বাংলায় |

ভালোবাসা প্রকাশের জন্য নির্দিষ্ট কোন দিনের প্রয়োজন নেই। ভালোবাসা সৃষ্টিলগ্ন থেকে ছিলো আর থাকবেও কিয়ামতের আগ পর্যন্ত। 


ভালোবাসা ছাড়া এই দুনিয়াটাই পুরোপুরি অচল হোক সেটা বান্দার প্রতি তার রবের কিংবা সমগ্র সৃষ্টিকুলের প্রতি সৃষ্টিকুলের।


আর এই ফলশ্রুতিতে প্রিয় ভালোবাসার মানুষটির সাথে ভালোবাসা শেয়ার করার জন্য তৈরী হয়েছে স্পেশাল একটি দিন যাকে আমরা ভেলেন্টাইনস ডে হিসাবে জানি। 


তবে ভালোবাসা প্রকাশের জন্য এদিনে আমরা আমাদের প্রিয় মানুষটির কাছে কিছু ভালোবাসা দিবসের sms পাঠিয়ে থাকি। 


কেউ শত শত কিলোমিটার দুরে থেকে ভালোবাসা খুজে পায়,আর কেউ কোলে শুয়ে থেকে ভাবে মাঝখানে এখনো শত শত কিলোমিটার দুরত্ব। 



ভালোবাসা দিবসের sms | Valentine's Day Sms বাংলায় |

যাতে করে প্রিয় মানুষটার কাছ থেকে আরো বেশি ভালোবাসা আশা করা যায়, এবং প্রকাশ করা যায় যে ওই মানুষটার প্রতি আপনার ভালোবাসার গভীরতা কতটুকু।


এরই ফলশ্রুতিতে আজকের এই পোস্টটিতে আমি ভালোবাসা দিবসের কিছু sms নিয়ে যা আপনি চাইলে এখান থেকে কপি করে নিয়ে প্রিয় মানুষটার কাছে পাঠাতে পারবেন। 


আমার ভালোবাসা কোন গাছের পাতা নয় যে টান দিলে ছিঁড়ে যাবে,আমার ভালোবাসা তোমার হ্দয়ের সাথে আমার হৃদয় শক্ত করে বাধা, যা মৃত্যু ছাড়া আর কেউ আলাদা করতে পারবে নাহ।


ছোট এই জীবনে তোমায় শুধু চাই,আমার যত ভালোবাসা তোমায় দিতে চাই,আমার সুখ দিবো তোমায় দুঃখ দিও আমায়,সুখ দুঃখের মাঝে এভাবেই মিশে রবো দুজনে যুগ যুগ ধরে।


ভালোবাসা কখনও থাকে নাহ মোহে, ভালোবাসা থাকে বাস্তবতায় যাতে থাকে নাহ কোন চাওয়া পাওয়া, থাকে শুধু একজন আরেকজনকে কাছে পাওয়ার তীব্র ইচ্ছে।



ভালোবাসা দিবসের sms | Valentine's Day Sms বাংলায় |

প্রেম মানেই হৃদয়ের টান, প্রেম মানে একটু অভিমান, দুটি পাখির একটি নিড়,দুটি পাখির দুটি তীর,দুটি মনের একটি আশা তার নাম "ভালোবাসা"

পরীর মতো একটা মেয়ে সুন্দর তার হাসি,

চোখদুটো তার টানাটানা দেখতে অভিমানি,
প্রথন দেখায় মনটা আমার নিয়েছে সে কেড়ে, কেমন করে বলবো আমি ভালোবাসি তারে৷ 

বনে বনে ফুল ফুটেছে গাছে নতুন পাতা,কার হৃদয়ের মাঝে হলো আমার ফুল গাথা,ফুল তুই সবার প্রিয় হলি কেমন করে,আমিও যে থাকতে চাই তর মতো করে। 


কেউ কি হবে আমার জোৎন্সা রাতের চাদ? অন্তর খুজে ভালোবাসা বাড়িয়ে দিয়ে হাত,কষ্ট খুজে দুঃখ, সুখ খুজে হাসি।

আর আমার মন বলে সারাক্ষণ তোমায় ভালোবাসি। 

তুমি সুন্দর তাই মন ভরে তোমায় দেখি, তুমি অপুর্ব তাই দুচোখ দিয়ে তাকিয়ে থাকি।আর তাই তোমাকে আমি অনেক ভালোবাসি, তুমি আসবে সেই অপেক্ষায় সারাক্ষণ পথ চেয়ে থাকি।



ভালোবাসা দিবসের sms | Valentine's Day Sms বাংলায় |

পথের ধারে প্রথম দেখা সেই মেয়েটির, যারা চোখে মায়াবী ছোঁয়া, মিষ্টি হাসি,আমি সেই মেয়েটির প্রেমে পড়েছি, আর তুমি কি নাম না জানা সেই মেয়েটি?


ফুলে সাজিয়ে রেখেছি এই মন,তুমি আসলে দুজন মিলে সাজাবো এই জীবন,চোখ ভরা স্বপ্ন, বুক ভরা আসা,তুমি আসলে ডাউনলোড দিবো আনলিমিটেড ভালোবাসা। 



তোমাকে আমি কতটা ভালোবাসি জানো? ওই নিল আকাশে তারা আছে যতটা ঠিক ততটাই বা তার চেয়েও বেশি। 


জানো তোমাকে তো খুব বেশি ভালোবাসি, অনেক বেশি আপন করে পেতে চাই তোমায়।হারাতে দিবো নাহ কখনও আর যদি হারিয়েও যাও কুড়িয়ে নিবো তোমায় সাথে সাথে।


জানো আজও কারো মন খুঁজাখুঁজি হয়নি, জানো কেন? তোমার মন পাবো বলে। 

আজও কারো কোমল হাতে স্পর্শ করিনি,শুধু তোমার হাতটি ধরবো বলে। 
আজও কারো সাথে শিশির ভেজা পথে হাটিনি তোমার সাথে হাটবো বলে। 
কাউকে আজও ভালোবাসিনি শুধু তোমায় ভালোবাসবো বলে। 

মন আজকে দিচ্ছে জানান, থেকোনা আর দুরে তুমি,

ভেতর থেকে বলছে হৃদয় আজকের ভালোবাসাটা শুধু তোমার।

'ভালোবাসা' শব্দটা হয় না কখনো পুরানো..হয় না কখনো মলিন,হয় না ধূসর কিংবা বর্নহীণ,. যা শুধু রংধনুর রঙে রঙিন, হোক না সেটা এপার কিংবা ওপারের, তারপরেও'ভালোবাসা তো শুধুই ভালোবাসা।


ভালোবাসা সেটা নয় যা ভিতরের কামনাকে জাগিয়ে তুলে৷ সত্যিকারের ভালোবাসায় থাকে নাহ কোন কামনা, থাকে শুধু প্রিয় মানুষটার সাথে শিশির ভেজা পথে একসাথে হাটার ইচ্ছা, আর সময় পেলে চুলগুলোকে এলোমেলো করে দেওয়া। 


তোমায় কাজলে রাঙানো চোখগুলোতে যতবার তাকিয়েছি, মায়ার বাঁধনে হেরে গিয়েছি ফিরে আসতে পারিনি কবু স্বাভাবিকে।



ভালোবাসা দিবসের sms | Valentine's Day Sms বাংলায় |

মন চায় আমার স্বপ্নের মায়াজাল বুনতে,মন চায় আমার ওই আকাশের তারাগুলো গুনতে,মন চায় আমার মেঘের দিনে রংধনু গুনতে, আরো বেশি মন চায় তোমাকে অনাবিল ভালোবাসতে।

তাহলে উপরের দেওয়া ভালোবাসা দিবসের sms গুলো আপনার প্রিয় মানুষটির কাছে সেন্ড করুন। 


নিজে নামাজ পড়ুন এবং প্রিয় মানুষটাকেও নামাজের প্রতি আহ্বান করুন। যাতে করে পরকালেও একসাথে থাকতে পারেন। অসংখ্য ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য 

নতুন ভালোবাসার গল্প| সমস্ত রোমান্টিক ভালোবাসার গল্পসমুহ একসাথে|

নতুন ভালোবাসার গল্প| সমস্ত রোমান্টিক ভালোবাসার গল্পসমুহ একসাথে|

যখন আমাদের প্রচন্ড মন খারাপ,  কিংবা আমাদের মনের মধ্যে প্রেম করার তীব্র ইচ্ছে  তখন আমাদের সঙ্গী হয় পুরনো ডায়েরীর ভাঁজে লুকিয়ে থাকা কিছু গল্প। 

আর সেটা যদি নতুন রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প তাহলে তো আর কোন কথাই নেই। আমরা সম্পুর্নভাবে পাগল হয়ে যাই গল্পটি পড়তে। 

তেমনি আজকের পোস্টটিতে আমি এরকম সিনেমার কাহিনীকেও হার মানায় এরকম কয়েকটি নতুন ভালোবাসার গল্প শেয়ার করেছি যা অবশ্যই আপনার ভালো লাগবে।


 সিনেমার কাহিনীকেও হার মানায় যে গল্প 


সপ্না আর নিলয় ছোট বেলা থেকেই একসাথে বড় হয়। সপ্নার বাবা ট্যাক্সি চালায়, আর নিলয়ের বাবা একজন হোমিওপ্যাথি ডাক্তার। দুই ফ্যামিলির মধ্যে সম্পর্কটা মন্দ নয়।  

সপ্না নিলয়কে মনে মনে ভালোবাসতো। কিন্তু কখনো বলতে পারে নি। তারা একত্রে অনার্স পাশ করে। নিলয়ের সরকারী চাকরি হয়। বাসা থেকে ধুমধাম করে বিয়ে দিয়ে দেয়। 

সপ্না বেচারি ঘরে বসে একা কাঁদে। কিছু করার থাকে না তার।  সপ্নার অবস্থা দেখে তার মা সপ্নাকে চেপে ধরে। জিজ্ঞেস করে সমস্যা কি। কান্নাবিজরিত গলায় সপ্না জানায় তার লুকানো প্রেমের কথা। তার একপেশে ভালোবাসার কথা।

সপ্নার পরিবারে দুঃখ নেমে আসে। সপ্নার বাবা জানতে পেরে মেয়েকে জলদি বিয়ে দেয়ার বেবস্থা করতে চান। কিন্তু সপ্নার এক কথা, তার মনের কোঠায় গভীরে সে নিলয়কেই বসিয়েছে। 

এখন কোনও অবস্থাতেই তার পক্ষে বিয়ে করা সম্ভব নয়। সে এমনকি এই বলে হুমকি দেয় যে বাড়াবাড়ি করলে সে আত্মহত্যা করবে। সপ্নার পরিবারের সবাই ভয় পেয়ে যায়। সাথে সাথে কষ্টও পায়। 

কিন্তু কিছু করার থাকে না। একমাত্র মেয়ের মুখের দিকে তাকিয়ে শুধু দীর্ঘশ্বাস ফেলা ছাড়া।  বছর পাঁচেক পরের ঘটনা। সপ্না এখন ঢাকাতে একটি বেসরকারি স্কুলে শিক্ষিকা। গ্রামে ইধানিং যায় না সে। বাবা মার সাথে ফোনে কথা হয়। এক পুজার ছুটিতে ৫ দিনের জন্য গ্রামে গেলো সে। 


নতুন ভালোবাসার গল্প| সমস্ত রোমান্টিক ভালোবাসার গল্পসমুহ একসাথে|

সে কি তখনো জ্যান্ত এইবারের গ্রামে ফেরা তার জীবনটা আমূল পাল্টে দিবে?  সপ্না বাসায় ফিরে দেখে বাসার সবার মাঝেই একটা কষ্ট উপলব্ধি করতে পারে। সপ্না মাকে জিজ্ঞেস করে কি হয়েছে? সপ্নার মা প্রথমে সপ্নাকে কিছুই বলে না। মেয়ের চাপাচাপিতে তিনি সব খুলে বলেন।  

নিলয় গ্রামে এসেছে। তার একটা ফুটফুটে বাবু হয়েছে। বাবুটার বয়স মাত্র ২ বছর। বাবুটাকে জন্ম দিতে গিয়ে তার মা মারা যায়। নিলয় গ্রামে এসে সপ্নার মা বাবার সাথে দেখা করতে আসে। ছেলেটার মনে এক অদ্ভুত ক্ষোভ দেখতে পান তারা। এক চাপা কষ্ট।  সপ্না ঘটনা শুনে থ হয়ে যায়। জীবনটা কোনও সিনেমা নয় যে সে নিলয়ের বাচ্চাকে বড় করবে। 

তাকে নিজের মেয়ের মতো করে পালবে। কিন্তু সপ্নার খুব ইচ্ছে করে। আরও একবার সপ্না নিজের কাছে হেরে যায়। মুখ ফুটে বলতে পারে না তার গোপন ইচ্ছের কথা।  পুজার ছুটি শেষ। আজ বিকেলে সপ্না ঢাকায় ফিরে যাবে। 

ব্যাগ গুছুচ্ছে এসময় সপ্নার মা দৌড়ে এসে খবর দিলেন নিলয় এসেছে।  সপ্না চমকে যায়। সে চাচ্ছিল যেনও নিলয়ের সাথে তার দেখা না হয়। কি লাভ কষ্টের বুঝা বাড়িয়ে?  

মায়ের কথায় অবশেষে নিলয়ের সাথে দেখা হয় তার। দুজনেই চুপচাপ। হটাত নিলয় বলে উঠে, “ঢাকায় থাকো শুনলাম? আমিও ঢাকায় থাকি। পরিবাগে। তুমি?”  “ধানমণ্ডিতে। আমরা ২জন ফ্রেন্ড একত্রে থাকি।

ও আমার সাথে একই স্কুলে পড়ায়। আমাদের পাশের গ্রামেরই মেয়ে।”  আরও কিছু কথা বলে তারা একে অপরকে বিদায় জানায়। “ভালো থেকো” বলে ঘুরে নিজের রুমের দিকে হাঁটতে থাকে সপ্না।

অজানা কষ্টে বুকটা ধুমরে মুচড়ে যাচ্ছে। নিজের মনের উপর অসম্ভব জোর খাটিয়ে ফিরে চলে সে রুমের পথে। ঘাড় ঘুরিয়ে শেষবারের মতো ফিরে তাকায় সে। দেখল নিলর দাঁড়িয়ে আছে তার কুলে একটা ফুটফুটে বাচ্চা নিয়ে।

নিলয়ের চোখটা ভেজা। দূর থেকেও দেখা যাচ্ছে অশ্রুকণাগুলো। কেন যেনও বাচ্চাটাকে দেখার পর নিজেকে আটকে রাখতে পারে না সপ্না।  নিলয় এবং সপ্নার বিয়ে হয় তাদের উভয় পরিবারের অনুমতি নিয়ে। 

ঢাকার পরিবাগেই এখন আছি আমরা। আমিই সেই মেয়ে। আর আমার বাবা মা আমার নাম কি রেখেছেন জানেন? “আলো”। 

বাবা-মার কাছ থেকে পুরো ঘটনাটি শুনি আমি তাদের ১৪তম বিবাহবার্ষিকীতে। এরপরেই লিখে ফেলি। আর আজ জানিয়ে দিলাম পৃথিবীকে।  সবাই দোয়া করবেন আমার পরিবারের জন্য। আমি ক্লাস টেনে পড়ি এখন। 

আমি আমার মাকে হারিয়েছি, কিন্তু পেয়েছি তার চেয়েও একজন শ্রেষ্ঠ মমতাময়ী নারীকে। তোমাদের দুজনকেই অনেক অনেক ভালোবাসি মা-বাবা। 


 ব্যর্থ প্রেমের গল্প 


আমি বাবা-মায়ের একমাত্র মেয়ে, ছোটবেলা বাবা মারা যায়,কিন্তু আমাদের ফ্যামিলি অনেক ভালো হওয়াতে কন প্রবলেম হয়নি, নিজের ভাই নেই কিন্তু আমার চাচার ২ ছেলে আমার আপন ভাইয়ের মতো ওদেরও কোন বোন নেই।

 বড় ভাইয়া ছোট ভাইয়ার কাছেই আমার যত বায়না। ছোটবেলা থেকে আমি একটু অন্যরকম ছিলাম, আমার জগতটা একদম আলাদা ছিল । 

যা চাইতাম তাই পাইতাম, কিছু বলতে দেড়ি হত কিন্তু জিনিসটা সামনে পেতে দেড়ি হত না। 

আম্মু-খালামনি, নানু, ভাইয়াদের চোখের মনি আমি, বড় আম্মু আমার নিজের আম্মুর থেকেও বেশিকিছু, ৪ বছর আগে ভাইয়াদের কাছে বায়না ধরেছিলাম নেট ইউজ করবো ভাইয়ারা না করলো না।

প্রথম ইউজ করতাম migg33 নতুন ছিলাম জানতাম না কি করতে হয় একটা ছেলের সাথে অল্প অল্প চ্যাট হত ওর আইডি টা আমি ভীষণ পছন্দ করতাম।

এরপর রাতদিন চ্যাট শুরু হয় আমাদের, কত গল্প কত দুষ্টামি, ফোন নাম্বার দেয়া নেয়া হল, আমি মেয়ে বলে ফোন দিলাম না ওই প্রথমে ফোন দিলো, ভয়ে রিসিভ করলাম না, এরপর দিতেই থাকলো ফোন, তারপর রিসিভ করলাম, কথা হলো ।

তারপর সারাদিন কথা হত আমাদের,রাতেও কথা হত। কথা বলতে অসুবিধা হলে mig তো আছেই । মাঝখানে কিছুদিন যোগাযোগ কম হল তখনি বুঝতে পারলাম ওকে ঠিক কতটা মিস করতেছি। 

বেস্ট ফ্রেন্ড অপুকে বিষয়টা বললাম, ও বলল তুই প্রেমে পরেছিস। তারপর অপু ওই ছেলেকে সব বলল । ওর নাম ছিল সাইফুল, পড়তো MMC তে । 

তখন ও আমায় ফোন করে বলল আমরা যেন ভালো বন্ধু হিসেবে থাকি,আমি রাজি হয়ে গেলাম কারন ওর সাথে কথা বলতে পারাটাই ছিল আমার জন্য অনেক আনন্দের একটি বিষয় ।


নতুন ভালোবাসার গল্প| সমস্ত রোমান্টিক ভালোবাসার গল্পসমুহ একসাথে|

এভাবে দিন যেতে লাগল,ফ্রেন্ড হিসেবে আর ভাবতে পারতাম না । আমি খুব দুষ্টু ছিলাম, সারাদিন শুধু দুষ্টামি আর লাফালাফি করতাম। 

আমি আইসক্রিম আর চকলেট খুব পছন্দ করতাম, তুমি বলতে আমাদের জখন দেখা হবে তুমি আমাকে অনেক আইসক্রিম আর চকলেট খাওয়াবে, এভাবে আমাদের দিন যেতে থাকলো। 

আমি বিবিএ তে ভর্তি হলাম আর ও এম এম সি তে ফাইনাল পরীক্ষা শেষ এক সাবজেক্ট খারাপ হইছে, ওর কষতগুলো শেয়ার করতাম, ওকে পাগলের মতো ভালবাসতাম এখনো পাগলের মতই ভালবাসি।

আপনারা বিশ্বাস করবেন কিনা জানি না ওর জখন কোনও অসুখ হতো বা বিপদে পড়ত সবার আগে আমি বুঝতে পারতাম কিভাবে যেন, পরে বুঝছি মনের মিল থাকলে এমন হয়, একবার ও সিরি থেকে পরে পা ভেঙে ফেললো আমার অস্থির লাগছিলো ফোন দিলাম বলল পায়ে ভেঙে ফেলেছে। 

আরেকবার পহেলা বৈশাখে ১ টা অনুষ্ঠানে গান গাইতে মঞ্চে উঠলাম কিন্তু কেন যেন অস্থির লাগছিলো তাড়াতাড়ি শেষ করে ওকে ফোন করলাম ওর ফ্রেন্ড বলল ও অসুস্থ...শুনে অনেক কাঁদলাম, ও থামাল আমাকে ওই দিনই আমার খুব জ্বর হয়।

ওর ফ্রেন্ডের কাছ থেকে ও শুনেও কোনও খবর দিলো না, খুব রাগ হল, অভিমানে ফোন দিলাম না...ফেসবুকে সারাদিন ওর ছবি দেখতাম, ওর ছবি সেভ করে রাখতাম, ৩ মাস আমাদের কোনও কথা হল না... 

আমার ভাইয়ারা জেনে গেলো সব, খুব মারল আমাকে, যে ভাইয়ারা কোনদিন ধমকও দেয়নি সেই ভাইয়াদের হাতে মার খেলাম!!! আমার ফোন নিয়ে নিলো, বিয়ে ঠিক হয়ে গেলো..।

আসতে আসতে পরিবেশ হালকা হল ৩ মাস পর, ফোন হাতে পেলাম, হাতে পেয়েই ওকে মেসেজ দেই সাথে সাথে উত্তর পেলাম, আমার খবর জানতে চাইল, ওই দিন সারারাত আমাদের কথা হল, 

ও কিছুতেই মানতে পারলো না, এরপর আরও দুর্বল হয়ে পড়লো আমার প্রতি, খুব অসুস্থ হয়ে পড়ি, আমার অপারেশনের দরকার হয় ও বলল ভয় নেই ও পাশে থাকবে, আমায় ঢাকায় নেয়া হল টেস্ট এর পর টেস্ট চলছিলো, 

আমি সুযোগ পেলে ওকে ফোন দিতাম, সারারাতই লুকায় লুকায় migg এ চ্যাট করতাম, ও ভালো কবিতা লিখতে পারতো আর আমাকে শোনাতো, আমি বললাম আমি মরেও যেতে পারি ও বলল মরেই যদি যাবে তবে এতো মায়ায় ফেললে কেন? 

কেঁদে ফেললো, এরপর শুরু হল আমার লাইফের কালো অধ্যায়...। একটা মেয়ে migg এ আমার খবর নিলো ও নাকি আমার সব জানে, আমায় বলল ওরা নাকি জাস্ট ফ্রেন্ড আমি বোকার মতো বিশ্বাস করলাম, 

অপারেশনের আগের দিন মেয়ে ফোন দিলো বলল ভয়ের কিছু নেই ঠিক হয়ে যাবে সব,সাইফুলকে বললাম মেয়েটা কে সাইফুলও বলল ওরা ফ্রেন্ড আমার অপারেশন হল ওই মেয়ে খালামনির ক্লাছে ফোন দিয়ে খবর নিতো, 

এরপর আমি সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে আসলাম হঠাৎ সাইফুল বদলে যেতে লাগলো!, আমি ফোন দিলেও ধরত না ধরলেও বলত বিজি, ওই মেয়েকে ফ্রেন্ড ভাবতাম তাই মনের সব কথা ক্লহুলে বলতাম, 

মাঝে মাঝে খারাপ ব্যাবহার করত, আমার সন্দেহ হতে লাগলো একদিন জিজ্ঞেস করলাম ভালবাসে কিনা সাইফুলকে, ও বলল না, কিন্তু ২ দিন পর বলল সরি ক (আমি) মিথ্যা বলেছি আমি সাইফুলকে ছাড়া বাঁচবো না, 

ওইদিনই ওই মেয়ে অনেকগুলো ঘুমের ওষুধ খায় অনেক খারাপ অবস্থা দেখে আমি কথা দেই আমি সরে যাবো সাইফুলের লাইফ থেকে, সাইফুলকে বললাম কেন এমন করলো ও তো জানত ওই মেয়ে ওকে ভালবাসে মেয়েটিকে কেন আশা দিয়ে রাখলো, 

আমার সাথেই বা কেন অভিনয় করলো? ও বলল তোমরা আমায় পাগল বানায় দিচ্ছ, ওই মেয়েকে আমি ভালবাসি না এখন তোমাকেও ভালবাসি না সাইফুলকে বললাম আমি কথা দিছি তাই সরে গেলাম তোমার জীবন থেকে তুমি ওকে ভালোবাসো, 

ও বলল কাউকে ভালোবাসে না কিন্তু ওরা দুজন সারাদিন ফোনে কথা বলে ফেসবুকে চ্যাট করে, মিগ এ চ্যাট করে। ওই মেয়ে আমায় ফোন দিয়ে খুব বাজে ব্যাবহার করলো আমার সাথে, তবুও আমি মাঝে মাঝে ওকে ফোন দিয়ে সাইফুলের কথা শুনতাম,

বলল ওরা খুব ভালো আছে দুজনেই অনেক ভালোবাসে দুজনকে, আমি খুশি ওরা তো সুখে আছে কিন্তু কেন যেন খুব কষ্ট হয়, ওকে মাঝে মাঝে ফোন দিলে রিসিভ করে না, করলেও অনীহা দেখায়। এখনো ভালবাসি আজ ৪ বছর হল ওকে ভালবাসি, ভুলতে পারি না, 

অপেক্ষায় থাকি জানি ফিরবেনা তবুও আশায় থাকি, এখনো আমি কিছুটা অসুস্থ কিন্তু সাইফুল কোনও খবরও নেয় না... বলতে পারিনা আমার ভুলটা কোথায়? কেন এমন হল আমার সাথে? (ওরা এখনো আমার ফ্রেন্ডলিস্টে আছে তাই নাম চেঞ্জ করে লিখলাম, এখনো প্রতিটি দিন প্রতিটি রাত ওর আশায় বুক বেঁধে রাখি)


তাহলে আজকে এই পর্যন্ত।

মন খারাপের কবিতা,স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

যখন আমাদের প্রচন্ড অবসর, তখন মনের কিনারে হঠাৎই ভেসে আসে কেউ একজনের ছবি,  এইতো সেই মাধবীলতা যার কারনে মনটা একদিন কেঁদেছিল।

পরক্ষনেই মনে পড়ে যায় কার জন্য আমি ভাবছি? কার জন্য বা মনের আনাচে-কানাচে উঠছে কালবৈশাখী ঝড়, সে তো আর আমার নয়:)

আর তখনই আমাদের শুরু হয় মন খারাপের গল্প, সময়টা যেন নিছক আমাদের চোখের একটা কোন দিয়ে এক ফোটা জল বার করিয়ে দেয়।

তখনই শুরু হয় নিজের সাথে নিজের যুদ্ধ, একাকীত্ব গ্রাস করে আমাদের, তখন আমরা নিজেদেরকে সামলানোর জন্য আপন করে নেই মন খারাপের কবিতা, স্ট্যাটাস, ছবি, উক্তি কিংবা মন খারাপের কথা।

তখন এই জিনিসগুলো আমাদের নিকট আত্মীয় হয়, তখন আমরা আস্তে আস্তে ভুলে যেতে থাকি চোখের কোনে জমে থাকা এক ফোঁটা কান্নার আর্তনাদ।

আর আজকের এই পোস্টে আমি আলোচনা করেছি মন খারাপের কবিতা,স্ট্যাটাস, ছবি, উক্তি এবং মন খারাপের কথা। আপনাদের মন বুলাবে নিশ্চয়ই।


 মন খারাপের স্ট্যাটাস 


তোমার সাড়া না পেয়ে একদিন বিড়ির ধোয়া উঠে থাকবে।
রাস্তার পাশে ফিল্টার পড়ে থাকবে।
সুখটানের কথা কেউ আর বলবে নাহ:)

ঘুম জড়ানো কন্ঠে, 
ভালোবাসি বলা মানুষটা আজ নিখোজ!!

যখন তোমার প্রচন্ড অবসর,
নেই কোন কাজের সমারোহ, তখন অনীহা হলেও ভেবো আমাকে নিয়ে কিছু সময়"

জীবনটাই যে থেমে গেল, নেই হাতের উপরে হাত রেখে তীব্র আদরে জড়িয়ে ধরে ভালোবাসি বলা মানুষটা'

তোমাকে ঠিক ততটাই ভালবাসতাম, যতটা ভালবাসি ক্যান্সারে আক্রান্ত ব্যক্তি তার শেষ প্রতিটা দিনকে'

তোমাকে হয়তো নিজের মতো করে কখনো পায়নি, তবুও তোমার কথা মনে হলেই চোখ দুটো ভিজিয়ে ফেলি মনের অজান্তে'

এই রঙের দুনিয়ায় আমার চাওয়ার কিছু নাই, রোজ হাশরে চাইবো তোকে খোদার খাজানায়'

জীবনে এরকম অনেক সময় আসে যখন মুখ ফোটে একফালি হাসি বের হয়না, প্রচন্ড খারাপ এর মধ্যে থেকে বলতে হয় ভালো আছি আমি, ভীষণ ভালো"°°

হারাবো কি, ভালোবাসাই তো পেলাম না.. ভালোবাসতে ও ভয় হয় আজ কাল, চারিদিকে এতো অভিনয়,
এতো মিথ্যা, এতো স্বারথপরতা।
আমি আজ ক্লান্ত, সত্যিই ক্লান্ত
কষ্টটাকে ও ক্লান্ত মনে হচ্ছে।..!

কিছু কিছু সময় খুব জোরে গলা ফাটিয়ে কাঁদতে ইচ্ছে করে, ঠিক তার পরের মুহূর্তে মনে পড়ে যায় আমি তো ছেলে, আমার যে কাঁদতে নেই!!!"

আজও মনে পড়ে তোমার সেই দুটি মায়াবী চোখ কে, যে চোখ দুটো আমার জন্য একদিন কেঁদেছিল:)

তুমি আমার কাছে কি জানো?
মাঝরাতে বুকের পাজরে লেগে থাকা ব্যাথা"

অথচ চেয়েছিলাম তোমার সাথে কান্না করতে।
"তোমার কারনে নয়"

তারপর কেটে যাবে অনেক বছর,
শরীরের চামড়াতেও পড়বে বয়সের ছাপ,
বদলাবে প্রিয় অভ্যেসগুলো,
জীবনে জড়াবে আরও অনেক মানুষ,
তবুও মনের কোনো এক জায়গায় কিছু স্মৃতি থাকবে স্বযত্নে অম্লান,
যেমন করে মানুষ খুব সাবধানে সংরক্ষন করে রাখে নথিপথ,
তেমন করেই মন আর মগজের একপাশে পড়ে থাকবে তুমি নামক মানুষটা,
যাকে সত্যিই নিজের করে পেতে চেয়েছিলাম সম্পুর্ণভাবে। সম্পুর্ণভাবে।

হৃদয় ভাঙার ব্যথাটা আমি বুঝি
কারন আমি তো তা খুব করে সয়েছি,
আর খুব সকালে চোখ মুছে,সবার সামনে আমিও হেসেছি!!


 মন খারাপের উক্তি-



আল্লাহ তা'আলা অবশ্যই তোমাকে দুঃখের পরে সুখ দিবেন - (আল কুরআন) কাজেই দুঃখ এসে গেলে মন ভেঙ্গে ফেলো না'

জীবনে তারাই সফলকাম, যারা দুঃখের সময় যথেষ্ট ধৈর্য ধারণ করে এবং এই সময় টিকে বেচেনে সাফল্যের একমাত্র হাতিয়ার হিসেবে:

আর তুমি যতদিন না কষ্টের মধ্যে থাকছো, ততদিন তুমি চিনতে পারবে না কাছের মানুষগুলোকে কারা তোমার আপন আর কারা পর""

কার জন্য কাঁদছো? তুমি আসলে বোকা, সে কখনোই তোমার ছিল না, আর কাঁদলেও হবে না কখনো..'

জীবনে চলার পথে দু একটা খারাপ সময় আসবে, জীবন যুদ্ধে টিকে থাকতে হলে এগুলোকে এড়িয়ে পাড়ি জমাতে হবে ভবিষ্যতে'

কার জন্য কাঁদছো রে মন? কার জন্য মনে আনাচে-কানাচে ঝড় উঠে ?সে কি ভাবে  তোমায় কখনো?

জীবনে যে বা যারা সফল হয়েছে, তাদের একমাত্র মূলধন ছিল দুঃখ-কষ্ট, তারা এগুলোকে পুঁজি করেই সফলতা ছিনিয়ে এনেছে আর জায়গা করে নিয়েছে লাখো কোটি মানুষের মনে'

মন খারাপের সময় তুমি বড্ড খামখেয়ালি করো' জীবন যুদ্ধে পরাজিত হওয়ার মত আচরণ করো ,কিন্তু কেন?? হেরে যেতে চাও কি?

মন খারাপের কবিতা-


খুব বেশি কাছে এসো না,
ভালোবেসো না আমাকে,
ভালবাসলে এখন শুধু ছাই পাবে'
ফিরে পাবে না কবু আমাকে""

এই যে নিষ্ঠুর জীবনটা থেমে গেল,
অমাবস্যা ঘনিয়ে এলো আমার প্রতিটি মুহূর্তে,
এর দায়ভার কে নিবে?
হে নিষ্ঠুর প্রিয়তমা তুমি নয় কি?

তারপর একদিন অমাবস্যার কালো আঁধার ঘেরা এই মনের ভিতর দেখা মিলবে এক ফালি সূর্যের,
 তখন কি আর আমি বেঁচে থাকব?
হয়তো পাড়ি জমাবো দূরের ওই গগনে, নয়তো পাগলের বেশে হেঁটে বেড়াবো এদিক নয়তো সে দিক'

 মন খারাপ? একি কোন অমৃতসুধা? নাকি চৈত্রের দুপুরে খা খা রোদ্দুরে ফেটে যাওয়া ওই দূরের চিরচেনা সেই খালটা'

এই যে আবার এলে?
কি চাও তুমি?
মন খারাপের এই তীব্র প্রচণ্ড জ্বালায় মনের আনাচে কানাচে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ আর মুখের কোনে এক চিলতে হাসির অধিকার টুকু কি কেড়ে নিতে চাও?


 মন খারাপের ছবি, পিক-



মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|


মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|


মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|
মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|


মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|

মন খারাপের স্ট্যাটাস,উক্তি এবং ছবির সমারোহ| সবকিছু একসাথে|


তাহলে আজকে এই পর্যন্ত, উপরে দেয়া মন খারাপের স্ট্যাটাস উক্তি এবং ছবি ব্যবহার করতে পারেন আপনার মন খারাপের প্রতিটি সময়।

পোস্টে শেষ পর্যায়ে আপনার কাছে একটি আবদার রাখবো, যেভাবেই আপনার নিকটে দুঃখ আসুক না কেন? মনকে শক্ত করে এগিয়ে চলুন সামনের দিকে।

ইনশাআল্লাহ এই মন খারাপের গল্পের শেষে সাফল্য আপনার দরজায় কড়া নাড়বে অবশ্যই' ঢের শুভকামনা আপনার জন্য।

হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ার Sms, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ার Sms, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

প্রথমেই ফেইসবুক হেলপ বিডি এর পক্ষ থেকে সকলকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে আজকের পোস্ট শুরু করছি।

আপনি হয়তো হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020 এর শুভেচ্ছা সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য নিউ ইয়ার এসএমএস, মুভি কিংবা অন্য কিছু খুঁজছেন?

কিন্তু আপনি কোথায় পাবেন হ্যাপি নিউ ইয়ার এর এসএমএস মুভি কিংবা 
পিকচার সমূহ?

নিউ ইয়ার এসএমএস, পিকচার, মুভি, এবং ওয়ালপেপার পাওয়ার জন্য আজকের এই পোস্টটি আপনাকে শেষ পর্যন্ত দেখতে হবে।


 নিউ ইয়ার এসএমএস 2020


>>গাছে ফুল ফুটেছে, আকাশে জমেছে তারার মেলা, নতুন বছর কাটবে ভালো, নেই তাতে কোন হেলা-

>>আগের দিনগুলো কেমন কেটেছে তাতে দিওনা নজর, নতুন বছর কিভাবে যাবে তাতে রাখো খবর। শুভ হোক তোমার এই বছর:)

>>নিউ ইয়ার দিচ্ছে উকি,
গাছে গাছে ডাকছে পাখি,
বন্ধু তোমায় বলে রাখি- হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020"

>>নতুন বছর আসছে এবার,
হকনা কারো মনটা খারাপ' ভালো কাটুক প্রতিটা দিন, এই কামনায় হোক তোমার জীবনটা রঙিন"

>>ঘড়ির কাঁটা আছে দেখো, বাকি আছে কিছুক্ষণ' গুজবে তোমার সকল দুঃখ শুরু হবে নতুন ক্ষন, এই কামনায় জানাই তোমায়-হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020"


হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ারের সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

>>পাখির ডানায় লিখে দিলাম নতুন বছরের নাম।
বন্ধু তুমি উড়ে দেখ পাবে সুখের ঘ্রান"

>>সূর্য এবার দিচ্ছি উকি, খাটবে দুঃখ হাসবে সবি, নতুন বছর দিচ্ছে ডাক, আওয়াজটা এবার উঠিয়ে রাখো"

>>পুরনো বছরটি কেটেছে অসহনীয় যন্ত্রণায়, তবে এই ব্যাথা আর বেশি দূর নয়' চলে এসেছে সেই দিন, নতুন বছরের প্রতিটি দিন হোক অমলিন- হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020"


হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ারের সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

>>গত বছরে সমস্ত আঁধারের কালো মেঘ ছেয়ে গিয়েছিল তোমার পুরোটা জীবন, তবে আঁধারে ঘেরা কালো মেঘের এবার অবসান ঘটল, আসলো আরেকটি নতুন বছর, কাটবে এবার সোনার দিন, হাসবে ওই মেঘলা আকাশ- নতুন বছরের শুভেচ্ছা নিন -হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020!

 >>"হে নতুন সূর্য, ভুলিয়ে দাও, 
আছে যত দূঃখ বেদনা। 
তোমার সোনালি আলোয়। 

>>হে নতুন সকাল, উড়িয়ে নিয়ে যাও, 
না পাওয়ার বেদনা। 
তোমার স্নিগ্ধ হাওয়ায়। 


হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ারের সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

>>হে নতুন বছর, তুমি নিয়ে এসো 
সুখ-আশা-স্বপ্ন আর ভালবাসার 
অফুরন্ত ঝুরি লয়ে।"

>>মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক ধরা, নতুন বছরের আনন্দ সমস্ত সৃষ্টি হোক আনন্দে মাতোয়ারা-

>>মেঘের কোলে রোদ উঠেছে বাদল গেছে টুটি, নতুন বছরের আনন্দ আজকে মোদের ছুটি-

>>নিশি যখন ভোর হবে, ঝিঁঝিঁপোকার ডাকা বন্ধ হবে, সূর্য তখন উকি দিবে, শুরু হবে বছরের আরেকটি দিন'  বছরটি হক অমলিন-

>>আজকে কোন দুঃখ নয়, নয় কোন মলিন মুখ, নতুন বছরে আনন্দে মুগ্ধ সমস্ত ধরণীর বুক-

>>শুভক্ষণ শুভদিন বছরের বাকি মাত্র আর কয়েকদিন, স্বপ্নে সাজাবো নানান রঙ্গে, হাসো তুমি নানান ঢংগে- করবে না আর দুঃখ তুমি, হাসবে তুমি অন্তর্যামী-

>>এই বছরের দুঃখ গুলি থাকবে না তোমার জীবন ভর, নতুন বছরের আনন্দে হাসবে তুমি যাযাবর-


হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ারের সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপার|


>>গতবছরের কষ্টগুলি নিল আজকে ছুটি, নতুন বছরের আনন্দে তোমার হকনা কোন টুটি-

>>জীবন থেকে নিল  বিদায় আরো একটি বছর, মৃত্যুর দিকে  আগাইতেছে তুমি সদা অগ্রসর'

>>ভুলগুলো শুধরে নেব, হাসবো এবার বাসবো ভালো- সবাইকে করে নিব আপন, নতুন বছরে এটাই হোক সবার জ্ঞাপন"

পুরানো সব দুঃখের আজ দাও ইতি মনের মাঝে মাতিয়ে তোল শুধুই সুখের স্মৃতি দুঃখটাকে আজ কুড়িয়ে নিয়ে দাও ফেলে সবার জন্য একটাই কামনা রইল পুরানো সব দুঃখ-কষ্ট, বেদনা ভুলে সুখের স্মৃতি সাথে নিয়ে এগ সবারই যেন এই বছরটিতে নতুন সব সুখের স্মৃতিতে স্মরণীয় হয়ে থাকে."


পুরানো সব দুঃখের আজ দাও ইতি মনের মাঝে মাতিয়ে তোল শুধুই সুখের স্মৃতি দুঃখটাকে আজ কুড়িয়ে নিয়ে দাও ফেলে সবার জন্য একটাই কামনা রইল পুরানো সব দুঃখ-কষ্ট, বেদনা ভুলে সুখের স্মৃতি সাথে নিয়ে এগ সবারই যেন এই বছরটিতে নতুন সব সুখের স্মৃতিতে স্মরণীয় হয়ে থাকে... HAPPY NEW YEAR 2019


2020 সালে ঝড় তুলবে এরকম কিছু মুভি নিয়ে এই পোস্ট এর দ্বিতীয় পর্ব শুরু করা যাক!

নতুন বছরের শুরুর দিকে আমরা তাকিয়ে থাকি নতুন কোন কিছুর দিকে, আর আমাদের পছন্দের তালিকার মুভি থাকতেই পারে।

সকলেই হয়তো নতুন বছরে ছুটিতে বিভোর থাকেন, আর মনের মধ্যে একটা ক্ষীণ আশা পুষে রাখেন- কোন মুভিটা এই বছরে মুক্তি পেল?

হয়তো সিনেমা হলে গিয়ে মুভি দেখার দুর্ভাগ্য সবার হয়না, তাই আমরা চেষ্টা করি ঘরে বসেই মুভি দেখতে।


হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ারের সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

কারণ ইন্টারনেটের জগতে এই মুভি দেখা একেবারেই সহজ, আপনি চাইলে ইউটিউব কিংবা যেকোন সার্চ ইঞ্জিনে আপনার পছন্দের মুভি লিখে সার্চ করলেই রেজাল্ট পেয়ে যাবেন।

এবং আপনি চাইলে আপনার পছন্দের মুভিটি একদম ফ্রিতে ঘরে বসেই যে কোন সময় যে কারো সাথে দেখতে পারেন।

তবে এখানে সবচেয়ে বড় বিষয় হলো- আপনি হয়তো জানেন না যে এই বছরের কোন মুভি গুলো মুক্তি পেয়েছে? জানলে ব্যাপারটা সহজ হয়ে যায় মুভি দেখার ক্ষেত্রে।

নিচে আমি এই বছরে মুক্তি পাবে এরকম কিছু অসাধারণ মুভির তালিকা দিয়ে দিচ্ছি,


 ঢালিউড মুভি 2020


মুভির নাম- বীর
অভিনয়- শাকিব খান ও বুবলি
পরিচালক- কাজী হায়াৎ
মুক্তি পাবে- 2020 সালের প্রথম দিকে।




মুভি নাম- ক্যাসিনো
অভিনয়- নিরব ও বুবলি
পরিচালক- সৈকত নাসির
 মুক্তি পাবে- 2020 সালে

সম্প্রীতি বাংলাদেশ ক্যাসিনো নিয়ে এক বিরাট সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে, আর এরই দৃশ্যকল্পে পরিচালক সৈকত নাসির এটি তৈরি করার চিন্তা করেছে।

তাছাড়া এই প্রথমবার বুবলিকে শাকিব খান ছাড়া অন্য কারো সাথে অভিনয় করতে দেখা যাবে এই মুভিতে।

মুভি নাম- ডেঞ্জার জোন
অভিনয়ে- বাপ্পি ও জলি
পরিচালনায়-  বেলাল সানি
মুক্তি পাবে- 2020 সালে


হরর মুভি দেখতে আপনি যদি পছন্দ করে থাকেন তাহলে এই মুভিটি আপনার জন্য, ইতিমধ্যে বাপ্পি ও জলি এই মুভিতে অভিনয় করার প্রেক্ষিতে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন।

তাছাড়া এটি বাংলাদেশে নির্মিত প্রথম ভুতের ছবি। আশাকরি মুভিটি মুক্তি পাওয়ার পর এর প্রথম ভিউয়ার্স আপনি হবেন।

মুভি নাম- শাহেনশাহ
অভিনয়- শাকিব খান, নুসরাত ফারিয়া, রোদেলা
পরিচালনায়- শামীম আহমেদ রনি
মুক্তি পাবে- 2020 সালে

শাহেনশা মুভির অসাধারণ দৃষ্টিভঙ্গি এবং গানের জন্য বর্তমানে মুভিটি অনেক সুনাম অর্জন করেছে, 

ছবিটি পরিচালনা করেছেন চিত্রনায়ক শাকিব খানের অন্তরঙ্গ বন্ধু শামীম আহমেদ রনি, ছবিটি মুক্তি পাওয়ার পর এটি ঢালিউডের ঝড় তুলবে।





মুভি নাম- মিশন এক্সট্রিম
অভিনয়- আরফিন শুভ, তাসকিন, ঐশী
পরিচালনায়- সানি এবং ফয়সাল
মুক্তি পাবে- 2020 সালে

আপনি যদি আরফিন শুভর ঢাকা অ্যাটাক মুভিটি দেখে থাকেন, তাহলে এই মুভিটি ঢাকা অ্যাটাক এর চেয়েও আরও উন্নত করে তৈরি করা হয়েছে।

যার ফলে এই মুভিটি যে কোন মুভি প্রেমিকের মন কেড়ে নিতে যথেষ্ট, তাই মুক্তি পাওয়ার সাথে সাথেই দেখে নেবেন আপনার স্মার্টফোনে কিংবা সিনেমা হলে।



মুভির নাম- শান
অভিনয়- সিয়াম, পূজা, তাসকিন
পরিচালক- এম রহিম
মুক্তি পাবে- 2020 সালে

পোড়ামন 2 অভিনয় করা সিয়ামের এই মুভিটিও শুরুর দিকে তোলপাড় শুরু করে দিয়েছে, বেশ আলোড়ন সৃষ্টিকারী এই মুভি কাজ প্রায় শেষ।

মুভিটির ফাস্ট লুক দর্শককে উজ্জীবিত করেছে, এবং সবাই এবার তাকিয়ে আছে কখন মুক্তি পাবে এই মুভিটি? এই আশায়।


মুভি নাম- ঢাকা 2040
অভিনয়- বাপ্পি ,নুসরাত ফারিয়া, তিশা
পরিচালক- দীপঙ্কর দীপন
 মুক্তি পাবে- 2020 সালে

আপনি যদি ঢাকা অ্যাটাক মুভিটি দেখে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই পরিচালক দীপঙ্কর দীপন কে জানেন, কারণ তিনি ঢাকা এটাক মুভি পরিচালনা করেছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় তিনি এই মুভিটি আবারো পরিচালনা করেছেন, এবং এই মুভির মূল প্রেক্ষাপট হলো কেমন হবে ঢাকা শহরের পরিবেশ 2040 সালে?

এছাড়াও মুভিটির অসাধারণ কারুকার্য ঢালিউডের বড় পর্দায় ঝড় তুলতে পারে, এবং সিনেমার জগতকে নিয়ে যাবে বহুদূর।

মুভি নাম- অপারেশন সুন্দরবন
অভিনয়ে- সিয়াম, রিয়াজ, নুসরাত ফারিয়া তাসকিন, রশান
পরিচালনায়-  দীপঙ্কর দীপন
মুক্তি পাবে- 2020 সালে

বেশ কয়েক তারকা সমন্বয়ে গঠিত এই মুভিটি ইতিমধ্যে ঢালিউডের পর্দায় ঝড় তুলেছে, এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন সিয়াম।

এছাড়াও আরো অভিনয় করেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা রিয়াজ এবং আরো অনেকে। জনপ্রিয় এই মুভিটির ফার্স্ট লুক ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়েছে।

মুভিটির কাজ ইতিমধ্যে পুরোপুরি শেষ হয়েছে, 2020 সালে যে কোন সময় মুক্তি পেতে পারে মুভিটি।

আর উপরের উল্লেখিত প্রত্যেকটি মুভি হল 2020 সালের সেরা আকর্ষণ, যে মুভিগুলো মুক্তি পাওয়ার দিকে তাকিয়ে থাকবে পুরো দেশ!

এছাড়াও পোস্টের প্রথম অংশে দেয়া এসএমএসগুলো আপনার যেকোন প্রিয়জনকে সেন্ড করতে পারেন নিউ ইয়ার এসএমএস বলে।


 নিউ ইয়ার 2020- ওয়ালপেপার



নতুন বছরে সবকিছু নতুন এর কারণে আমাদের মধ্যে যারা স্মার্টফোন ইউজার তারা এটা চান যে তাদের স্মার্টফোনের ওয়ালপেপার টি ও হোক নিউ ইয়ার এর রিলেটেড।

তাই তারা হয়ত প্রতিনিয়ত কয়েকটি ইউনিক-android উপযোগী ওয়ালপেপার  খুঁজে থাকেন, আর এই পোস্টটিতে এরকম ওয়ালপেপার নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

আপনি চাইলে নিচের দোয়া অ্যাপস থেকে অনেকগুলো ওয়ালপেপার ডাউনলোড করতে পারবেন, তাও একদম ফ্রিতে।

এর আগে আপনি চাইলে নিচের দেয়া স্ক্রিনশটগুলো এক নজরে দেখে নিতে পারেন।



হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020| নিউ ইয়ারের সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপার|

আর উপরের দেয়ায় স্ক্রিণশটের মত অ্যাপসটিতে কয়েক শত ওয়ালপেপার আছে, যা আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনকে সাজিয়ে তুলবে অন্যরকমভাবে।

তাহলে আর দেরি না করে নিচে থেকে অ্যাপসটি ডাউনলোড করে নিন, আর ইনজয় করুন হ্যাপি নিউ ইয়ার 2020।

New year 2020- wallpaper


তাহলে আজকে এই পর্যন্ত, উপরের দেওয়া নিউ ইয়ার 2020 এর সেরা এসএমএস, মুভি এবং ওয়ালপেপারগুলো ইনজয় করুন আর শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে।

নতুন বছরটি আপনার শুভ হোক এই কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করলাম। অসংখ্য ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য।